আজ বিশ্ব কিডনি দিবস

55

এমএনএ ডেস্ক রিপোর্ট : আজ ৯ মার্চ বিশ্ব কিডনি দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য নির্ধারিত হয়েছে— ‘স্থূলতা কিডনি রোগ বাড়ায়, সুষ্ঠু জীবন-যাপনে সুস্থ কিডনি।’ দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল।

দিবসটি উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেন, বর্তমানে অসংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। চিকিৎসকদের মতে জন্মগত ত্রুটি, বংশগত রোগ, স্থূলতা, নেফ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, অপর্যাপ্ত পানি পান, ব্যথানাশক ওষুধ সেবনসহ নানাবিধ কারণে বিশ্বে ধীর গতির কিডনি বিকল রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। কিডনিকে সুস্থ রাখতে করণীয় ও বর্জনীয় সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত তিনি।

পাশাপাশি দিবসকে ঘিরে বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন, কিডনি ফাউন্ডেশন ও ক্যাম্পাস যৌথভাবে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। মাসব্যাপী ফ্রি চিকিত্সা সেবা প্রদান করছে ইনসাফ বারাকাসহ কিডনি হাসপাতাল। একই সঙ্গে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্যোগে আজ এক জনসচেতনামূলক সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে।

কিডনি রোগীদের জন্য পর্যায়ক্রমে এর সুযোগ-সুবিধার পরিধি আরো বাড়ানো হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, কিডনি বিকল রোগীদের জন্য অত্যন্ত কম খরচে ডায়ালাইসিস সেবা প্রদানের লক্ষ্যে আমরা পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) প্রকল্পের মাধ্যমে সীমিত আকারে আন্তর্জাতিক মানের ডায়ালাইসিস সেবা কেন্দ্র চালু করেছি।

দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। পাশাপাশি দিবসকে ঘিরে বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন, কিডনি ফাউন্ডেশন ও ক্যাম্পাস যৌথভাবে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। মাসব্যাপী ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান করছে ইনসাফ বারাকাসহ কিডনি হাসপাতাল। একই সঙ্গে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্যোগে আজ এক জনসচেতনামূলক সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে।

এ দিকে নিজেদের কর্মীদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে কিডনি রোগের সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইনের আয়োজন করে মোবাইল ফোন অপারেটর রবি। কেএএমপিএস’র (কিডনি অ্যাওয়ারনেস মনিটরিং অ্যান্ড প্রিভেনশন সোসাইটি) খ্যাতিমান কিডনি বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. এমএ সামাদ সেশনটি পরিচালনা করেন।