আমাদের শপথ নেয়ার প্রশ্নই ওঠে না : মির্জা ফখরুল

এমএনএ রিপোর্ট : শপথ পার হয়ে গেছে, প্রত্যাখ্যান করলে শপথ থাকে নাকি আর? আমরা শপথ নিচ্ছি না, পরিষ্কার করে বললাম। আমরা আগেই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছি। ভোটের ফলও প্রত্যাখ্যান করেছি। তাই আমাদের শপথ নেয়ার প্রশ্নই ওঠে না বলে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এবারের নির্বাচন নিয়ে নানা অভিযোগ করে তার ফল প্রত্যাখানের ঘোষণা দিয়ে আসা বিএনপি আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বিএনপি ও জোটের প্রার্থীদের নিয়ে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান ফখরুল।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যে কয়জন বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন তারা শপথ গ্রহণ করবেন না বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘শপথ পার হয়ে গেছে, প্রত্যাখ্যান করলে শপথ থাকে নাকি আর? আমরা শপথ নিচ্ছি না, পরিষ্কার করে বললাম।’

এসময় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সব প্রার্থী আলাদাভাবে নির্বাচনের অনিয়ম ও কারচুপির বিষয়ে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করবেন বলে জানান বিএনপি মহাসচিব।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে জয়ী মহাজোটের নতুন এমপিরা আজ সকালে শপথ নিয়েছেন। শপথ নেননি ঐক্যফ্রন্টের সাত নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‌ আমরা তো আগেই এ নির্বাচন ও ভোটের ফল প্রত্যাখ্যান করেছি। এখানে শপথের প্রশ্ন আসছে কেন? আমি পরিষ্কারভাবে বলছি- আমরা শপথ নিচ্ছি না। অন্যদের শপথ নেয়া হয়ে গেছে। আমরা শপথ নিচ্ছি না।

আজকের বৈঠকের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের প্রার্থীরা নির্বাচনের বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ জানিয়ে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে মামলা করবে।

নির্বাচন জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ প্রহসন ও তামাশার। এ নির্বাচনে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। আমরা এই নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করেছি।

তিনি বলেন, নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর আজকে আমরা স্মারকলিপি দেব।

তিনি আরও বলেন, আমাদের বক্তব্যগুলো স্মারকলিপিতে লেখা আছে। এটি নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রায় ১৫ জনের একটি প্রতিনিধিদল যাচ্ছি ইসিতে।

তিনি জানান, সারাদেশে নির্বাচনের দিন অনিয়মের বিভিন্ন অভিযোগসহ স্মারকলিপি দিতে বিকেলে নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে ২৯৯ আসনের প্রার্থীদের কাছ থেকে নিজ নিজ এলাকার নির্বাচনের বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম ও ভোট কারচুপির তথ্য, ছবি ও ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব তথ্যানুযায়ী নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে প্রার্থীদের অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার কিছু সময় পর সংসদ ভবনের শপথকক্ষে শপথ গ্রহণ করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মহাজোট প্রধান শেখ হাসিনাসহ জোটের নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা। এসময় বিএনপির নির্বাচিত পাঁচ সাংসদ এবং দলটির নেতৃত্বাধীন দুইজন নেননি।

সংসদ নির্বাচনের ফল গেজেট আকারে প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে শপথ গ্রহণ এবং শপথ নেওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে সংসদের বৈঠক ডাকার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরুর ৯০ দিনের মধ্যে শপথ না নিলে বা স্পিকারকে না জানালে বিজয়ীদের আসন শূন্য হওয়ার বিধানও রয়েছে।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের বৈঠকে সদ্য নির্বাচনে বিজয়ী মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, হারুনুর রশীদ, আমিনুল ইসলাম, মোশারররফ হোসেন ও জাহিদুর রহমানসহ ধানের শীষের ১৭৪ জন প্রার্থী উপস্থিত ছিলেন।

x

Check Also

আজ বুধবারের দিনটি আপনার কেমন যাবে?

এমএনএ ফিচার ডেস্ক : আজ ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার। নতুন সূর্যালোকে আজ মঙ্গলবারের দিনটি আপনার ...

Scroll Up