আশকোনায় বিস্ফোরণস্থল পরিদর্শনে পুলিশ ও র‍্যাবপ্রধান

44

এমএনএ রিপোর্ট : রাজধানীর আশকোনায় হাজি ক্যাম্পের কাছে প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরে বিস্ফোরণস্থল পরিদর্শন করেছেন র‍্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ ও পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক। সন্ধ্যা ছয়টা ৪০ মিনিটের দিকে তাঁরা ঘটনাস্থলে আসেন। ১৫ মিনিট পর তাঁরা বের হয়ে যান। এ সময় তাঁরা গণমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি।

আজ শুক্রবার বেলা একটার দিকে প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরে ‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণে এক যুবক নিহত হন।

র‍্যাবের পরিচালক (গণমাধ্যম) মুফতি মাহমুদ খান বলেন, বেলা একটার দিকে আশকোনায় প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরের সীমানাপ্রাচীর টপকে এক যুবক ভেতরে প্রবেশ করেন। অপরিচিত লোক দেখে তাঁকে চ্যালেঞ্জ করে র‍্যাব। একপর্যায়ে যুবক তাঁর শরীরের সঙ্গে থাকা বোমার বিস্ফোরণ ঘটান।

মুফতি মাহমুদ খান বলেন, বিস্ফোরণে ওই যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হন। তাঁর শরীর ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে।

‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণের ঘটনায় র‍্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার পর র‍্যাবের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল ঘটনাস্থলে আসে। আসেন র‍্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

হাজি ক্যাম্পের পশ্চিম পাশে প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তর অবস্থিত। সেখানে অস্থায়ী ব্যারাক আছে।

হাজি ক্যাম্প ও প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরের মাঝে একটি সীমানাপ্রাচীর আছে। এই সীমানাপ্রাচীর টপকে ওই যুবক প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরের ভেতরে প্রবেশ করেন বলে বলা হচ্ছে।

মোমেন তালুকদার নামের এক প্রত্যক্ষদর্শীর ভাষ্য, জুমার নামাজ আদায় করতে হাজি ক্যাম্পে প্রবেশ করছিলেন তিনি। এ সময় প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরের দিক থেকে বিকট বিস্ফোরণের আওয়াজ শুনতে পান। বিস্ফোরণের শব্দে পুরো এলাকা কেঁপে ওঠে। সবাই ছোটাছুটি করতে থাকে। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে একজনের ছিন্নভিন্ন লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।