কর্নি সেনাদের মুখে ‘পদ্মাবত‘-এর প্রশংসা

26
এমএনএ বিনোদন ডেস্ক : দীর্ঘ নাটকীয়তার অবেশেষে অবসান! ‘পদ্মাবত’ ছবিতে ইতিহাসকে বিকৃত হয়নি- পরিচালক থেকে ছবির বিশ্লেষক, সকলেই এ কথা বলে গলা ফাটালেও কর্নি সেনাদের কানে তা ঢোকেনি। অবশেষে ডিগবাজি তাদের। ‘পদ্মাবত‘ ছবির প্রশংসা করে প্রতিবাদে ইতি টেনেছে রাজপুত হিন্দুদের এই সংগঠন।
ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে তৈরি এই ছবিকে ঘিরে গত বছরের জানুয়ারি থেকে চলছে বিক্ষোভ। রাজপুত রানি পদ্মীনির জীবন ইতিহাস বিকৃত করার অভিযোগে ছবির নির্মাতাদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিল হিন্দু সংগঠনগুলি। ছবির শুটিং থেকে শুরু হয়েছিল তাণ্ডব। শুটিং সেটে পরিচালককে মারধর করা থেকে সেটে আগুন লাগিয়ে দেওয়া, কিছুই বাদ যায়নি। এমনকী ছবির নায়িকা দীপিকা পাড়ুকোনের নাক কাটার হুমকিও দেওয়া হয়। তাদের চাপেই আদালতের হস্তক্ষেপে ছবির নাম পালটে দেয় সেন্সর বোর্ড। কিন্তু তা সত্ত্বেও ঠাণ্ডা করা যায়নি রাজপুত কর্নি সেনাদের।
সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ উপেক্ষা করে ছবির মুক্তি রুখতে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে তাণ্ডব চালায় কর্নি সেনারা। ছবি মুক্তির পর পরিস্থিতি আরও ভয়ঙ্কর রূপ নেয়। সিনেমা হলে আগুন দেওয়া হয়। এমনকী দেশজুড়ে ধর্মঘটের ডাকও দেওয়া হয়।
সেই কর্নি সেনারা এবার শান্ত। গত শুক্রবার তাদের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, ‘পদ্মাবত’ নিয়ে আর তাদের কোনও ক্ষোভ নেই।
কিন্তু আচমকা তাদের ভোলবদলের কারণ কী? এমন কী হল যে শান্তির পথে ফিরল রাজপুত সংগঠন?
জানা যাচ্ছে, গত শুক্রবার রাজপুত কর্নি সেনার জাতীয় সভাপতি সুখদেব সিং গোগামাদি সংগঠনের কয়েকজন সদস্যকে নিয়ে মুম্বইয়ের একটি হলে ছবিটি দেখতে যান। ছবি দেখে গর্ববোধই হয় তাদের। তারপরই তারা জানান, এ ছবিতে রাজপুতদের মর্যাদায় কোনও আঘাত করা হয়নি। বরং রানি পদ্মিনী ও রাজপুতদের ঐতিহ্যকে গৌরবান্বিতই করা হয়েছে ছবিতে। এতে আলাউদ্দিন খিলজির সঙ্গে রানি পদ্মাবতীর কোনও কাল্পনিক দৃশ্যও নেই।
এর আগে কর্নি সেনা সংগঠন প্যানেলের দুই ইতিহাসবিদও ক্লিনচিট দেন সঞ্জয় লীলা বানশালীর এই ছবিকে। তারা জানান, ছবির সঙ্গে ইতিহাসের কোনও সম্পর্কই নেই। তবে তাতেও ক্ষোভ কমেনি সংগঠনের। ছবিটি সিনেমা হলে দেখার পর অবশেষে পিছু হটল কর্নি সেনারা।
ছবি মুক্তির আগে থেকেই নির্মাতা ও বলিউডের অন্যান্য অভিনেতা-অভিনেত্রীরা এই এক কথাই বলে আসছিলেন। আগে ছবিটি দেখুন, তারপর প্রতিবাদ করার হলে করবেন। ছবি দেখার পরই ভুল ভাঙে কর্নি সেনাদের। পদ্মাবত ছবির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রতিবাদ তুলে নেওয়ার ঘোষণা দেন তারা। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস