কান চলচ্চিত্র উৎসবে স্বর্ণপাম জিতল ‘দ্য স্কয়ার’

47

এমএনএ বিনোদন ডেস্ক : ৭০তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে স্বর্ণপাম জিতল ‘দ্য স্কয়ার’। সবাইকে টপকে স্বর্ণপাম ঘরে তুললেন সুইডিশ নির্মাতা রুবেন ওস্টলান্ড। তাঁর ছবি ‘দ্য স্কয়ার’ জিতেছে কান উৎসবের সবচেয়ে বড় পুরস্কার স্বর্ণপাম। একটি মডার্ন আর্ট মিউজিয়ামের কিউরেটরকে নিয়ে এই ছবির গল্প।

পুরস্কার হাতে নিয়ে ‘দ্য স্কয়ার’ নির্মাতা রুবেন ওস্টলান্ড বললেন, ‘আমার জন্য এক অসামান্য সম্মান।’ গতকাল রবিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় একে একে এবারের বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। ১৯টি ছবির মধ্যে সেরা ছবি নির্বাচিত হয় সুইডেনের ‘দ্য স্কয়ার’।

উৎসবের রোশনাই ছড়াল চলচ্চিত্রপ্রেমীদের তীর্থশহর দক্ষিণ ফ্রান্সের কানে। ১৭ মে থেকে টানা ১২ দিন বিভিন্ন প্রান্তের তারকা, নির্মাতা, প্রযোজক ও কলাকুশলীর পদচারণায় মুখর ছিল ৭০তম কান চলচ্চিত্র উৎসব। এ বছর পামের চিরল পাতাসদৃশ লজেন্স আকৃতির কাচের স্বচ্ছ পুরস্কারটি ৬২ বছর পূর্ণ করল। উৎসবের মূল কেন্দ্র প্যালে ডি ফেস্টিভাল ভবনের গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় শুরু হয় সমাপনীর আনুষ্ঠানিকতা। উৎসবের উদ্বোধনী আয়োজনের মতো সমাপনীতেও উপস্থাপনা করেন বিখ্যাত অভিনেত্রী মনিকা বেলুচি।

শেষ পর্যন্ত দ্বিতীয় সেরা হিসেবে বিবেচিত গ্রা প্রি নিয়েই খুশি থাকতে হচ্ছে আরেক প্রশংসিত ছবি বিপিএম (বিটস পার মিনিট) এর নির্মাতা রবিন কাম্পিলোকে। স্বর্ণপামের অন্যতম দাবিদার ছিলেন রাশিয়ার আন্দ্রেই জিগনাতসিয়েভ। তাঁর ছবি ‘লাভলেস’ জিতেছে জুরি পুরস্কার।

সেরা পরিচালক সোফিয়া কপোলা (দ্য বিগাইল্ড)। সেরা অভিনেত্রী ডায়ান ক্রুগার।

 সেরা পরিচালক হয়েছেন মার্কিন নির্মাতা সোফিয়া কপালা (দ্য বিগাইল্ড)। সেরা অভিনেত্রী ডায়ান ক্রুগার (ইউ দ্য ফেড, জার্মানি)। ফাতিহ আকিনের ‘ইন দ্য ফেড’ ছবিতে অভিনয় তাঁকে এনে দিয়েছে এই পুরস্কার। সেরা অভিনেতার পুরস্কার জিতেছেন হলিউড তারকা জোয়াকিম ফিনিক্স (ইউ অয়্যার রিয়েলি নেভার হিয়ার, ব্রিটেন)।গ্রান্ড পি পুরস্কার পেয়েছে ফরাসি নির্মাতা রবিন ক্যাম্পিলো পরিচালিত ‘১২০ বিটস পার মিনিট’। সেরা চিত্রনাট্যের পুরস্কার পেয়েছেন যৌথভাবে ব্রিটিশ নারী নির্মাতা লিন র‌্যামসের থ্রিলারধর্মী ছবি ‘ইউ ওয়্যার নেভার রিয়েলি হিয়ার’ ও গ্রিক নির্মাতা ইওর্গস লানটিমসের ‘দ্য কিলিং অব অ্যা স্যাক্রেড ডিয়ার’।

৭০ তম আসরের বিশেষ জুরি পুরস্কার জিতেছেন নিকোল কিডম্যান।

সেরা চিত্রনাট্যের পুরস্কার ভাগাভাগি হয়েছে ইয়োরগোস লানথিমোসের ‘এ কিলিং অব এ সেকরেড ডিয়ার’ এবং লিন রামসের ‘ইউ অয়্যার রিয়েলি নেভার হিয়ার’ ছবির মধ্যে।

ক্যামেরা দ’র জিতেছে জুন ফেমে।

স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবির বিভাগে স্বর্ণ পাম জিতেছে কিউ ইয়েং পরিচালিত চীনা ছবি-‘এ জেন্টল নাইট’। হারানো মেয়ের খোঁজে নামা এক মাকে নিয়ে ছবির গল্প।

স্বর্ণপাম ও অন্যান্য বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয় প্রতিযোগিতা বিভাগের নয়জন বিচারকের উপস্থিতিতে। স্প্যানিশ নির্মাতা পেদ্রো আলমোদোভারের নেতৃত্বে বিচারক প্যানেলে ছিলেন উইল স্মিথ, মার্কিন অভিনেত্রী জেসিকা চ্যাস্টেইন, চীনা অভিনেত্রী ফ্যান বিংবিং, ইতালিয়ান পরিচালক পাওলো সরেন্তিনো, ফরাসি অভিনেত্রী-গায়িকা আনিয়েস জাউই, জার্মান নারী পরিচালক মারেন আদে, দক্ষিণ কোরীয় চলচ্চিত্রকার পার্ক চ্যান-উক ও অস্কারজয়ী ফরাসি সঙ্গীত পরিচালক গ্যাব্রিয়েল জারেদ। পুরস্কার দেওয়ার পর গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরেই দেখানো হয় ‘দ্য স্কয়ার’।

আনসার্র্টেন রিগার্ডে সেরা ইরানি ছবি: এবারের আসরে আনসার্টেন রিগার্ডে বিভাগে সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার জিতেছে ইরানি পরিচালক মোহাম্মদ রাজুলফের ‘অ্যা ম্যান অব ইন্টেগ্রিটি’। গত শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় পালে দো ফেস্টিভাল ভবনের সাল দুবুসি প্রেক্ষাগৃহে এ বিভাগের পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এ ছবিটির গল্প ৩৫ বছর বয়সী রেজাকে ঘিরে।

আনসার্টেন রিগার্ডে নির্বাচিত ২২টি দেশের ১৮টি ছবির মধ্যে ইরানি চলচ্চিত্রটিই বিচারকদের মন কেড়েছে। এবারের আসরে এ বিভাগে বিচারকদের সভাপতি ছিলেন মার্কিন অভিনেত্রী উমা থারম্যান। তিনিই ঘোষণা করেন সেরা ছবির নাম। মঞ্চে আরও ছিলেন মিসরের পরিচালক মোহাম্মদ দিয়াব, ফরাসি অভিনেতা রেদা কাতেব, বেলজিয়ান পরিচালক জোয়াকিম লাফস ও চেক রিপাবলিকের কার্লোভি ভ্যারি চলচ্চিত্র উৎসবের আর্টিস্টিক ডিরেক্টর কারেল ওশিয়াস। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন কান উৎসবের পরিচালক থিয়েরি ফ্রেমো।

ইতালির ‘ফরচুনাটা’ ছবির জন্য সেরা অভিনেত্রী হয়েছেন জেসমিন ট্রিঙ্কা। এ বছরে জুরি পুরস্কার জিতেছে মেক্সিকোর মিশেল ফ্রাঙ্কো পরিচালিত ‘এপ্রিল’স ডটার’। ‘উইন্ডরিভার’ ছবির জন্য সেরা পরিচালক হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের টেলর শেরিড্যান। আনসার্টেন রিগার্ড বিভাগের উদ্বোধনী ছবি ফরাসি অভিনেতা-নির্মাতা ম্যাথু আমারিকের ‘বারবারা’ হয়েছে সেরা নান্দনিক চলচ্চিত্র।

ফিপরেস্কি পুরস্কার গেল ফরাসি, রাশিয়ায়: এবারের আসরে ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব ফিল্ম ক্রিটিকসের (ফিপরেস্কি) বিচারে প্রতিযোগিতা বিভাগ থেকে সেরা হয়েছে মরক্কোয় জন্ম নেওয়া ফরাসি নির্মাতা রবিন ক্যাম্পিলোর ‘১২০ বিটস পার মিনিট’। এ ছবির গল্পটা এইচআইভি/এইডস বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করা একদল তরুণ-তরুণীকে ঘিরে। আনসার্টেন রিগার্ড বিভাগে প্রদর্শিত ছবির মধ্যে রাশিয়ার কাস্তেমির বালাগভের ‘ক্লোজনেস’ এবং ডিরেক্টরস ফোর্টনাইটে নির্বাচিত ছবিগুলোর মধ্যে পেদ্রো পিনহো পরিচালিত ‘দ্য নাথিং ফ্যাক্টরি’ও পেয়েছে ফিপরেস্কি পুরস্কার। ইকুমেনিকাল জুরি পুরস্কার পেয়েছে প্রতিযোগিতা বিভাগে নির্বাচিত জাপানের নারী নির্মাতা নাওমি কাওয়াসের ‘হিকারি’।

অন্যান্য পুরস্কার: প্রতিযোগিতা বিভাগ আর আনসার্টেন রিগার্ড ছাড়াও কান চলচ্চিত্র উৎসবে থাকে আরও তিনটি প্রতিযোগিতা বিভাগ। এর মধ্যে কান ক্রিটিকস উইক বিভাগে সেরা ছবি হয়েছে প্রামাণ্যচিত্র ‘মাকালা’। কান ক্রিটিকস উইকে ভিশনারি প্রাইজ ও গ্যান ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে সত্যি ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত ‘গ্যাব্রিয়েল অ্যান্ড দ্য মাউন্টেন’।