গরমেও দীর্ঘসময় মেকআপ সুন্দর রাখার উপায়

54

এমএনএ ফিচার ডেস্ক : গরমের সময়টাতে কোনো অনুষ্ঠানে যেতে হলে অনেকেই কীভাবে সাজবেন এবং এই সাজ কীভাবে দীর্ঘ সময় ত্বকে ঠিক থাকবে এটা নিয়ে ভাবেন। অনেকে তো এই সমস্যার জন্য মেকআপ না করেই যাওয়ার চিন্তা করেন।  কিন্তু একদম সাদামাটা ভাবে কোথাও গেলে নিজের কাছেই খারাপ লাগে। তাহলে পরের অনুষ্ঠানেও কী একই ভাবে যেতে হবে? না কারণ এই সমস্যার চটজলদি সমাধান তো রয়েছে। আর গরমেও দীর্ঘসময় মেকআপ সুন্দর রাখার সমাধান দিয়েছেন রূপবিশেষজ্ঞ মোসাম্মৎ সেলিনা হোসেন

রমনীর সৌন্দর্যে বাড়তি মাত্রা যোগ করতে সাজগোজের প্রচলন বহু আগে থেকে। বর্তমানে বিয়ে, জন্মদিন বা পার্টিতে সবার সুদৃষ্টি আকর্ষণে নারীর পোশাকের সঙ্গে মানানসই সাজের বিকল্প ভাবা যায় না। পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে সাজটাও হওয়া চাই জাকজমকপূর্ণ। অথচ এতো সাধের সাজে বাধ দিতে আসে গরম। তাই বলে গরমের সময় তো আর সাজগোজ ছাড়াই বাইরে যাওয়া সম্ভব নয়। তৈলাক্ত বা শুষ্ক ত্বকের মেকআপ যাতে গরমে ঘেমে নষ্ট না হয়ে যায়, সেজন্য শিখে নিতে পারেন কিছু লুকানো কৌশল।

সেলিনা বলেন, গরমে আমরা ভয় না পেয়ে উপভোগ করতে শিখলেই অনেক সমস্যা কমে যাবে। আর এই সময়ে সব থেকে জরুরি হচ্ছে সুস্থ থাকা। ত্বক সুস্থ রাখা। এজন্য প্রয়োজন প্রচুর পানি পান করা। সিজনাল ফল খাওয়া। সেই সঙ্গে কোনো অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য কিছুটা সময় হাতে রেখে তৈরি হওয়া।

প্রথমে মেকআপ শুরু করার ১০ মিনিট আগে ত্বক ভালোমতো পরিষ্কার করে নিয়ে একটি পরিষ্কার পাতলা কাপড়ে বরফ পেঁচিয়ে নিয়ে যে যে স্থানে মেকআপ করবেন ত্বকের সেসব স্থানে পুরো ১০ মিনিট ধরে বরফ ঘষে নেবেন। বরফ ঘষা শেষ হলে ত্বক মুছে নিয়ে মেকআপ করুন। এতে ত্বক সজিব লাগবে ও মেকআপ দীর্ঘসময় ঠিক থাকবে।

এরপর ফেসওয়াশ এবং ক্লিনজার দিয়ে ত্বক খুব ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। কারণ ত্বকে ময়লা বা তেলতেলে ভাব থেকে গেলে মেকআপে অস্বস্তি থাকবে। ত্বকের অস্বস্তি থাকলে মেকআপও গলে যাওয়ার ভয় থাকে বেশি।

মুখ ধুয়ে এক টুকরো বরফ ঘষে ত্বকের প্রশান্তি দিতে পারেন। এতে করে মেকআপ অনেকটা সময় ত্বকে সেট থাকে।

গরম হলেও ত্বকের সঙ্গে মানানসই ক্রিম ব্যবহার করুন। ত্বক ঠাণ্ডা রাখে এমন ক্রিম বেছে নিতে পারেন। তাছাড়া ক্রিম ছাড়া যত মেকআপই দিন না কেন মুখ উসকোখুসকো দেখাবে।

ক্রিমের বদলে টোনার দিয়ে মুখ ভালো করে মুছে নিতে পারেন। ভালো সানস্ক্রিন লোশন লাগিয়ে নিলে অতিরিক্ত তেল দূর হবে এবং মেকআপ সেট থাকবে অনেকটা সময়।

মেকআপ গলে যাওয়া রোধ করতে প্রথমে মেকআপ প্রাইমার লাগিয়ে নিতে হবে।

এবার এমন মেকআপ ও কসমেটিকস ব্যবহার করুন যা পুরোপুরি অয়েল ফ্রি। এতে মেকআপ গলে যাওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

খুব অল্প পরিমাণে ফাউন্ডেশন ব্যবহার করবেন। লিকুইডের চেয়ে সেমি-লিকুইড বা পাউডার ফাউন্ডেশন ব্যবহার করলে মেকআপ গলার সম্ভাবনা কম থাকে।

আলগা পাউডার চেপে দিয়ে ত্বকের উপরে মেকআপ সেট করে নিতে পরেন। এতে বাড়তি তেল পাউডার শুষে নেয়ার কাজ করবে অনেকটা সময় এবং মেকআপ গলবে না।

গরমকালে অবশ্যই ওয়াটারপ্রুফ মেকআপ ব্যবহার করুন। হাতে রাখতে হবে টিস্যু, যাতে ঘেমে গেলেও বার বার আলতো করে মুছে নেয়া যায়। অনুষ্ঠান তো শেষ হবেই, বাসায় আসা পর্যন্ত মেকআপ নিয়ে নিশ্চিন্তে থাকবেন।

গরমে ঘেমে আমাদের লোমকূপের গোড়া থেকে ঘাম ও তেল বের হয় তা মেকআপ নষ্ট হয়ে ‍যায়। এজন্য সকল প্রসাধনী ওয়াটারপ্রুফ ব্যবহার করুন।

টিস্যু দিয়ে মেকআপ ঠিক করতে গেলে উল্টো তা আরও নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। টিস্যুর পরিবর্তে ব্যাগে রাখুন মেকআপের স্পঞ্জ। মেকআপ ঠিক রাখার জন্য খানিকক্ষণ পরপর মেকআপের স্পঞ্জ দিয়েই ঠিক করে নিতে পারেন।

গরমে হালকা আরামদায়ক পোশাক পরুন। এবার ত্বকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ফাউন্ডেশন মুখে ও গলায় লাগিয়ে একটা ভেজা স্পঞ্জ দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। ফাউন্ডেশন দেয়ার পরও মুখে যদি ভাঁজ বা দাগ থাকে তাহলে কনসিলার ব্যবহার করুন। এবার কমপ্যাক্ট পাউডার দিন।

চোখ: ফাউন্ডেশন লাগানোর সময় চোখের ওপর ও নিচে ভালো করে মিলিয়ে দিন। চোখের তলায় কালি থাকলে কনসিলার দিয়ে নিন। আর যদি ফেস পাউডার ব্যবহার করেন তাহলে ব্রাশ দিয়ে পাউডার ভালো ভাবে ঝেড়ে নিন। এরপর চোখের ওপর সারা পাতাজুড়ে বেস আইশ্যাডো লাগান।

পোশাকের সাথে মিলিয়ে বা দুই বা তিনটি শেড মিলিয়ে আইশ্যাডো লাগিয়ে নিন। ভ্রূ’র ঠিক নিচে হাইলাইটার লাগান। কাজল শুধু চোখের ভেতর লাগান, ওপরে ও নিচে আইলাইনার লাগান। যারা আইলাইনার ব্যবহার করতে চান না, তারা একটু গাঢ় করে কাজল লাগাতে পারেন। সবশেষে ২ কোটে মাশকারা লাগান।

নাক : নাক একটু ছোট ও মোটা হলে দু’পাশে ডার্ক শেডের ফাউন্ডেশন লাগিয়ে নিন। এতে করে নাক শার্প দেখাবে। নাকের ওপরের অংশে লাইট শেডের ফাউন্ডেশন এবং কম্প্যাক্ট লাগিয়ে নিন।

ব্লাসন: গোলাপী, বাদামী শেডের ব্লাসন ব্রাশে নিয়ে নিন। একটু হেসে নিয়ে আপনার গালের আপেল পয়েন্ট সিলেক্ট করুন এবং চিক বোন এ ব্লাসন লাগান। আপনার মুখ যদি ফোলা টাইপের হয় তবে গোলাপী ব্লাসন দেবেন না, এতে মুখ আরও ফোলা লাগে।

একটু সময় হাতে নিয়ে সেজে বের হোন। প্রিয়জন আপনার সাথে সেলফি তুলতে নিজেই এগিয়ে আসবেন।