চলতি মাসেই যুক্তরাষ্ট্রে হামলা চালাতে প্রস্তুত উত্তর কোরিয়া

55

এমএনএ ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : চলতি আগস্ট মাসেই যুক্তরাষ্ট্রে হামলা চালানোর জন্য প্রস্তুত রয়েছে উত্তর কোরিয়া। আর চারটি ক্ষেপণাস্ত্রে এ হামলাও চালানো হবে জাপানের আকাশের ওপর দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের গুয়ামে।

গুয়ামে মার্কিন বিমানঘাঁটি রয়েছে। এটি যুক্তরাষ্ট্রের কৌশলগত বোমারু বিমানঘাঁটি। সেখানে সাবমেরিন ও কোস্টগার্ড ইউনিটও আছে।

আজ বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রপারিচালিত সংবাদমাধ্যম কেসিএনএ এর বরাত দিয়ে বিবিসি ও সিএনএন এই খবার জানায়।

গতকাল বুধবার উত্তর কোরিয়া গুয়াম ঘাঁটিতে হামলার পরিকল্পনার ঘোষণা দেয়। পরে রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এক বিবৃতির বরাত দিয়ে জানায়, দেশটির সেনাবাহিনী চলতি মাসের মাঝামাঝি সময় হামলা চালাতে ‘পরিকল্পনা চূড়ান্ত’ করেছে। এখন শুধু কিম জং-উনের অনুমোদনের অপেক্ষা।

উত্তর কোরিয়ার স্ট্র্যাটেজিক রকেট ফোর্সেস এর প্রধান লে. জেনারেল কিম রক-জিওম এক বিবৃতিতে বলেন, ক্ষেপণাস্ত্র ও পারমাণবিক ইস্যুতে পিয়ংইয়ংকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুমকির জবাবে মার্কিন অঞ্চল গুয়ামের কাছে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চলাতে ‘গুরুতরভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা পরিকল্পনা’ করছে উত্তর কোরিয়া। দ্য হওয়াসং-১২ রকেটগুলো কেপিএ (কোরিয়ান পিপলস আর্মি) ছুড়বে। এগুলো জাপানের শিমানে, হিরোশিমা ও কোইচি এলাকার আকাশ দিয়ে উড়ে যাবে। এগুলো ১৭ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে ৩৩৫৬ দশমিক ৭ কিলোমিটার দূরত্ব পাড়ি দিয়ে গুয়াম ঘাঁটি থেকে ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে সাগরে পড়বে।

বিবৃতিতে বলা হয়, কোরিয়ান পিপলস আর্মির (কেডিএ) নর্থ কোরিয়ান স্ট্র্যাটিজিক্যাল ফোর্স গুয়ামকে লক্ষ্য করে হওয়াসং-১২ (Hwasong-12) নামে মাঝারি মাত্রার চারটি কৌশলগত ক্ষেপণাস্ত্র রকেট নিক্ষেপ করবে।

গত মাসে পিয়ংইয়ং হওয়াসং ১৪ (Hwasong-14) নামে ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে। যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রাণকেন্দ্রে আঘাত হানতে সক্ষম বলে দাবি করে উ. কোরিয়া।

হওয়াসং নামের এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো উত্তর কোরিয়া নিজেরাই তৈরি করেছে। এগুলো মাঝারি ও দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র। বিবৃতিতে বলা হয়, গত মঙ্গলবারের ট্রাম্পের হুমকি ‘ফালতু কথা’। যেসব মানুষ আজেবাজে কথা বলে, তাকে শুধু কথা বলে দমানো যাবে না, শক্তি প্রয়োগ করলেই কেবল কাজ হবে।

ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার ওপর নতুন অবরোধ অনুমোদন দেয় জাতিসংঘ। এই অবরোধকে পিয়ংইয়ং তার দেশের সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন বলে অভিহিত করে। অবরোধ আরোপের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করে সমুচিত জবাব দেওয়ারও ঘোষণা দেয় দেশটি।

এর পরপরই মঙ্গলবার উত্তর কোরিয়াকে কড়া ভাষায় হুঁশিয়ারি দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে ফের হামলার হুমকি দিলে উত্তর কোরিয়াকে আগ্রাসী জবাব দেওয়া হবে। পিয়ংইয়ংকে এমন জবাব দেওয়া হবে, যা আগে কখনো দেখেনি বিশ্ব। জবাবে পিয়ংইয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই হুমকির নিন্দা জানায়।

জাতিসংঘ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র অব্যাবহত রেখেছে উত্তর কোরিয়া। আর এ জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রায়ই ক্ষিপ্ত হচ্ছেন উত্তর কোরিয়া ও দেশটির শীর্ষ শাসক কিম জন উনের ওপর। ফলে পাল্টা-পাল্টি হামলার হুমকি ও হুঁশিয়ারিতে ক্রমশেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পিয়ংইয়ং ও ওয়াশিংটন।