ছাত্রলীগের নতুন দুই কাণ্ডারির সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

এমএনএ রিপোর্ট : ছাত্রলীগের নতুন দুই কাণ্ডারি হিসেবে আল-নাহিয়ান খান জয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং লেখক ভট্টাচার্য ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্বে এসেছে বড় ধরনের পরিবর্তন। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগের মুখে পদত্যাগ করেছেন কেন্দ্রীয় কমিটির দুই শীর্ষ নেতা সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। সংগঠনটির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন আল নাহিয়ান খান জয় ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পাচ্ছেন লেখক ভট্টাচার্য।

ছাত্রলীগের নতুন এই দুই কাণ্ডারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। এর মধ্যে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর ইউনিয়নের ঠাকুরমল্লিক গ্রামের ছেলে জয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে শোভনের সঙ্গে একই বর্ষে ভর্তি হয়েছিলেন। বর্তমানে জয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধবিজ্ঞান বিভাগে সান্ধ্যকালীন স্নাতকোত্তর অধ্যায়ন করছেন।

তার দাদা মোশাররফ হোসেন খান ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা। বাবা আবদুল আলীম খান সমাজসেবক হিসেবে বরিশাল বিভাগে সুপরিচিত। ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আবদুল আলীম আশির দশকে ঢাকার বৃহত্তর বরিশাল ছাত্র সমিতির প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। বাবার হাত ধরে জয় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়েছিলেন। বরিশাল জেলা স্কুলে অধ্যয়নরত অবস্থাতেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে হাতেখড়ি দেয়া জয় উপজেলা ছাত্রলীগেও সম্পৃক্ত ছিলেন। এসএসসি পাশ করে ঢাকা কমার্স কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেন তিনি।

শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের আবাসিক ছাত্র জয় হল শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইন বিষয়ক সম্পাদক ও পরবর্তীতে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটিতে আইন বিষয়ক সম্পাদক পদের দায়িত্ব পান। সর্বশেষ তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

অন্যদিকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হওয়া লেখক ভট্টাচার্য বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ বিভাগে স্নাতকোত্তর করছেন। যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ কল্যাণ বিভাগে (২০০৮-০৯ সেশনে) ভর্তি হন তিনি। বর্তমানে তিনি এই বিভাগ থেকেই স্নাতকোত্তর করছেন।

যশোরের মনিরামপুরের ছেলে লেখক সম্পর্কে যশোর-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও গণপূর্তমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের ভাতিজা। লেখক ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন ছাড়াও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ও জগন্নাথ হল শাখা ছাত্রলীগের বিগত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

নতুন দায়িত্ব পাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে লেখক বলেন, “আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করে যাবো।

আংশিক কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণার হিসেবে আরও প্রায় ১১ মাস পর ছাত্রলীগের পরবর্তী সম্মেলন হওয়ার কথা। সে পর্যন্ত আল-নাহিয়ান জয় ও লেখক ভট্টাচার্যই সংগঠনটির নেতৃত্ব দেবেন।

x

Check Also

অস্ত্র ও মাদক মামলায় ১০ দিনের রিমান্ডে সম্রাট

এমএনএ রিপোর্ট : ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেপ্তার ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে অস্ত্র ও ...

Scroll Up