জাপানের টোকিও থেকে ৪০০ বছরের বনসাই চুরি

এমএনএ ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : জাপানের রাজধানী টোকিওর উপকণ্ঠে ফুয়ুমি লিমুরা নামে এক নারীর সাজানো বাগানে চুরি হয়েছে। সেখান থেকে চোর নিয়ে গেছে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর বনসাই গাছগুলির কিছু প্রজাতি। এমনকি ৪০০ বছরের একটি বনসাইও সেখানে ছিল।

গত মাসের এই চুরিতে খানিকটা দুঃখ পেলেও লিমুরা গাছগুলোর মায়া ছাড়তে পারেননি। সেজন্য তিনি ফেসবুকে একটি বার্তা পোস্ট করে গাছগুলোর যত্ন নিতে বলেছেন। তিনি বলেছেন, দয়া করে গাছগুলোতে পানি দেবেন।

এ বিষয়ে একটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, লিমুরার সাজানো এই বাগানে চোরেরা হানা দিয়ে সবচেয়ে দামি গাছগুলোই নিয়ে যায়, যেখানে ছিল কিছু দুর্লভ প্রজাতির গাছও।

ফেসবুক পোস্টে লিমুরা বলেন, ‘নিজের সন্তান হারানোর মতো ব্যাপার এটি। তবে আরও খারাপ ব্যাপার হবে যদি গাছগুলোর সঠিক পরিচর্যা ও যত্ন নেওয়া না হয় এবং অযত্নে শতাব্দীর সবচেয়ে মূল্যবান গাছগুলো শুকিয়ে যায়।’

জাপানি এ বাগান মালিক বলেন, ‘যারাই গাছগুলো নিয়েছে, আমি চাই তারা এগুলোর সঠিক পরিচর্যা করুক। ৪০০ বছর ধরে বেঁচে থাকা শিম্পাকু প্রজাতির গাছটি পানি দেওয়া এবং পরিচর্যা ছাড়া এক সপ্তাহও বাঁচবে না। বিরল প্রজাতির এই গাছটি সঠিক পরিচর্যায় দীর্ঘকাল বাঁচতে পারে।

সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, চোরের দল জেনে-বুঝেই এই দুর্বৃত্তপনা ঘটিয়েছে। তারা লিমুরার বাগান থেকে ৭টি গাছ চুরি করেছে, যেগুলো তার সংগ্রহের সবচেয়ে মূল্যবান ছিল। গাছগুলোর মূল্য প্রায় ১ লাখ ১৮ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় এক কোটি টাকা)। তবে অবৈধ মার্কেটে এগুলোর মূল্য আরও বেশি হতে পারে।’

লিমুরা বলেন, ‘গাছগুলোকে আমি আমার সন্তানের মতো মনে করতাম। আমাদের এখন কেমন লাগছে তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। মনে হচ্ছে আমাদের শরীরের কোনো অঙ্গ কেটে ফেলা হয়েছে।’

লিমুরার স্বামীর নাম সেইজি লিমুরা। তিনি পঞ্চম প্রজন্মের একজন বনসাই বিশেষজ্ঞ। সেইজির পরিবার ‘ইডো’ যুগ থেকে বংশ পরম্পরায় বনসাই চাষ করে আসছেন। এই ইডো যুগের পরিব্যাপ্তি ছিল ১৬০৩ সাল থেকে ১৮৬৮ সাল পর্যন্ত।

ওয়ার্ল্ড বনসাই ফ্রেন্ডশিপ ফেডারেশনের মতে, শিম্পাকু বিপন্ন প্রজাতির এক ধরনের গাছ, যা খুব উঁচু এলাকায় পাওয়া যায় এবং যা সংগ্রহ করা অনেক কষ্টকর। লোকমুখে প্রচলিত আছে, বনসাই সংগ্রহকারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই পাহাড়ের ওপর থেকে এসব গাছ নিয়ে আসতেন।

লিমুরা’র শিম্পাকুর পেছনেও এমন গল্প রয়েছে। প্রায় চার শতাব্দী আগে এটিও একটি পর্বত থেকে আনা হয়েছিল। লিমুরার পরিবার পরিচর্যার মাধ্যমে গাছটিকে বাঁচিয়ে রেকেছে। চুরি যাওয়ার সময় এটি তিন ফুট লম্বা এবং দুই ফুটেরও বেশি প্রশস্ত ছিল।

জাপানের সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, এতো মূল্য ও খ্যাতি থাকার পরও লিমুরা তার বনসাইগুলো লুকিয়ে রাখেননি। বরং সবার জন্যই উন্মুক্ত করে রেখেছিলেন, যেন সবাই এগুলো দেখতে পারে। পাশাপাশি রাখেননি কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থাও। কিন্তু তার উদারতার সুযোগ নিয়ে চোরের দল দুলর্ভ ও মূল্যবান গাছগুলো চুরি করে নিয়ে গেলো।

এক সাক্ষাৎকারে লিমুরা বলেন, বনসাই বিষয়ে বিশেষজ্ঞ কেউই এই কাণ্ডে জড়িত রয়েছে।

যদিও চুরি হওয়া বনসাইগুলোর কোনো তথ্য ইন্টারপুলের কাছে নেই। তবে, অন্যান্য চুরির ঘটনার চেয়ে এটি সবচেয়ে গুরুতর বলে মনে করছে জাপানি প্রশাসন।

২০১৮ সালের নভেম্বরে জাপানের সাইতামা শহরের একটি বাগান থেকে আটটি বনসাই চুরি হয়েছিল। বাগানটিতে আটটি সিসি ক্যামেরা থাকার পরও সেই ঘটনা ঘটেছিল।

x

Check Also

আবারও আটকে গেল রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কার্যক্রম

এমএনএ রিপোর্ট : বাংলাদেশের পক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ সম্পন্ন হওয়ার পরও রোহিঙ্গারা যেতে রাজি ...

Scroll Up