ডেঙ্গু নিয়ে তামাশায় মেতেছেন ক্ষমতাসীনরা : রিজভী

এমএমএ রিপোর্ট : দেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষমতাসীনরা নিষ্ঠুর তামাশায় মেতে উঠেছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

আজ শনিবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, ডেঙ্গুজ্বর মহামারি আকারে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ছে। আক্রান্তের সংখ্যা এরইমধ্যে সাড়ে তিন লাখ ছাড়িয়ে গেছে। অথচ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে সারা দেশে কমপক্ষে ৯ হাজার ৬৫৭ জন মানুষ মশাবাহিত রোগে অসুস্থ হয়েছেন।

তিনি বলেন, সরকার ডেঙ্গুজ্বরের প্রকোপ ধামাচাপা দিতে সরকারি যন্ত্রকে ব্যবহার করছে। রাজধানী ঢাকার হাসপাতালগুলো ডেঙ্গু রোগীর ভিড় সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে।

‘হাসপাতালগুলোতে ভয়াবহ অবস্থা তৈরি হয়েছে। কোনো জায়গাতেই বেড খালি নেই। বেসরকারি হাসপাতালগুলো ডেঙ্গু রোগী ভর্তি বন্ধ করে দিয়েছে। হাসপাতাল থেকে অনেক রোগীকে ফেরত দেয়া হচ্ছে।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের হিসাবে গতকাল শুক্রবার ২৪ ঘণ্টায় ৩৯০ জন রোগী ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকাতেই ৩৮৬ জন।

রিজভী বলেন, এডিস মশাবাহিত এ রোগে এ পর্যন্ত অন্তত ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে বিভিন্ন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হিসাবানুযায়ী মৃত্যুর সংখ্যা হবে আরও বেশি।

‘অথচ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে- ডেঙ্গুজ্বরে মাত্র আটজন রোগী মারা গেছে। এই ভয়াবহ ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবে আতংকে দিনযাপন করছেন নগরবাসী। ডেঙ্গু নিয়ে মানুষের যখন ত্রাহি অবস্থা তখন মধ্যরাতের ভোট চুরির সরকার এ নিয়ে অস্বাভাবিক আচরণ করছে।’

মশা নিধনে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না অভিযোগ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) গবেষণায় যে ওষুধ অকার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে, সেগুলো দিয়েই চলছে ঢাকার দুই সিটির মশক নিধন কার্যক্রম।

রিজভী বলেন, চরম ব্যর্থ মন্ত্রী-মেয়ররা হবুচন্দ্র রাজার গবুচন্দ্রের মতো প্রলাপ বকছেন। ওষুধ কেনায় ভয়াবহ দুর্নীতি আর অদক্ষতা ঢাকতেই ডেঙ্গুর মহামারিকে ঢাকার ভোটারবিহীন মেয়ররা ‘গুজব’ বলে উড়িয়ে দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে তারা রসিকতা করছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘ডেঙ্গু মশার প্রজনন রোহিঙ্গাদের মতো, তাই এটি প্রতিরোধ করা যাচ্ছে না।’ একজন মেয়র বলেছেন- দক্ষিণে ওষুধ দিলে এডিস মশা উত্তরে চলে যায়, আর উত্তরে দিলে দক্ষিণে চলে আসে।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত মানুষকে নিয়ে ক্ষমতাসীনদের এসব নিষ্ঠুর তামাশায় ফরাসী বিপ্লবের সময় ফ্রান্সের কান্ডজ্ঞানহীন রানীর কথাই মনে পড়ে। যখন এক টুকরো রুটির জন্য সারা প্যারিস শহরের মানুষ হাহাকার করছে, তখন ফ্রান্সের রানী সেই কথা শুনে বলেন-রুটি না থাকলে কেক খাবে।

তিনি আরও বলেন, যুগে যুগে রোগে-শোকে-ক্ষুধায় অসহায় নিপীড়িত মানুষদেরকে তাচ্ছিল্য ও অবজ্ঞা করতে বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ঢাকার মেয়রদের মতো লোকের অভাব ছিল না।

রিজভী বলেন, স্থানীয় সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মশার ওষুধের কার্যকারিতা নিয়ে সাফাই গেয়েছেন। মনে হয় ডেঙ্গুর মতো মহামারিতে দেশের মানুষের মৃত্যু যেন তাদের কাছে খেলা।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের লেজেগোবরে অবস্থা। আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন বাড়লেও এখনও কার্যকর ওষুধ কেনার কোনো উদ্যোগ নিতে পারেনি। ন্যুনতম লজ্জা-শরম থাকলে এই ব্যর্থতার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী-মেয়ররা পদত্যাগ করতেন।

x

Check Also

তাইওয়ানের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের ৬৬ যুদ্ধবিমান বিক্রি

এমএনএ ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : চীনের সঙ্গে চলমান ‘বাণিজ্য যুদ্ধ’সহ বিভিন্ন সংকটের মধ্যেই তাইওয়ানের কাছে ৬৬টি ...

Scroll Up