দাপুটে জয়ে সমতায় ফিরল পাকিস্তান

45

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : একই মাঠ, আগের ম্যাচের চেয়ে কম স্কোর। এরপরও দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৭৪ রানের দাপুটে জয়ে সিরিজে সমতায় ফিরল পাকিস্তান।

প্রথম ম্যাচে নিষ্প্রভ ছিলেন বাবর আজম ও হাসান আলি। দ্বিতীয় ম্যাচে এই দুই তরুণই পাকিস্তানের জয়ের নায়ক। অসাধারণ সেঞ্চুরিতে দলকে টেনে নিলেন বাবর। ৫ উইকেট নিয়ে ক্যারিবিয়ানদের গুঁড়িয়ে দিলেন পেসার হাসান।

গায়ানায় গতকাল রবিবার পাকিস্তানের ২৮২ রান তাড়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলআউট ২০৮ রানে। আগের ম্যাচে ৩০৮ রান তাড়া করে জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

টানা দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতে পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আগের ম্যাচে দারুণ শুরু এনে দেওয়া দুই ওপেনারকে ফেরায়ও দ্রুত।

তৃতীয় উইকেটে বাবর ও মোহাম্মদ হাফিজ গড়েন ৬৯ রানের জুটি। রানের গতি যদিও দারুণ কিছু না। বাবর ইনিংস গড়েছেন ধীরে সুস্থে। হাফিজ বরাবরের মতোই শুরুতে মন্থর।

৫০ বলে ৩২ করে হাফিজ স্টাম্পড হন অ্যাশলি নার্সের অফ স্পিনে। শোয়েব মালিকও এদিন ফেরেন দ্রুত। পাকিস্তানের ঘুরে দাঁড়ানোর শুরু বাবরের সঙ্গে সরফরাজের জুটিতে। পঞ্চম উইকেটে ৫৫ রান তোলেন দুজন।

ম্যাচের মোড় পাল্টে দেওয়া জুটি এরপরই। বাবর ও ইমাদ ওয়াসিম দুর্দান্ত এক জুটি গড়েন সপ্তম উইকেটে। মাঝারি স্কোরের শঙ্কা থেকে পাকিস্তানকে ২৮০ ছড়িয়ে নিয়ে যায় এই জুটিই।

পঞ্চম ওভারে উইকেটে গিয়ে বাবর মাঠ ছেড়েছেন বাকি পুরো ইনিংস খেলে। ৭ চার ও ৩ ছক্কায় অপরাজিত ১২৫ রানে। মাত্র ২৫ ওয়ানডেতেই ৫ সেঞ্চুরি হয়ে গেল ২২ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানের।

আরেকপাশে দারুণ সঙ্গ দিয়ে ইমাদ অপরাজিত ৩৫ বলে ৪৩ রানে। ৬৮ বলে দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটি ৯৯ রানের।

রান তাড়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছিটকে যায় শুরুর দিকেই। নতুন বলে জুনাইদ খান ও মোহাম্মদ আমির এন দেন ব্রেক থ্রু। হাসান বোলিংয়ে এসে পরপর দুই ওভারে নেন উইকেট। মিডল অর্ডারে জোড়া ধাক্কা দেন হাফিজ। যার মধ্যে ছিল আগের ম্যাচের নায়ক জেসন মোহাম্মেদের উইকেটও। ওয়েস্ট ইন্ডিজ তখন ৬ উইকেটে ৭৫!

এরপর কেবল ব্যবধান কমানের লড়াই। তৃতীয় ওয়ানডে অর্ধশতকে অধিনায়ক জেসন হোল্ডার করেছেন ৬৮। অফ স্পিনার নার্স আবার দেখিয়েছেন ব্যাটের ঝলক। এবার ৪৩ বলে ৪৪।

লোয়ার অর্ডারেও এসেছে কিছু রান। তাতে দুইশ ছাড়াতে পেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। লড়াই অবশ্য জমেনি।

মঙ্গলবার একই মাঠে হবে শেষ ওয়ানডেতে সিরিজের ফয়সালা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান: ৫০ ওভারে ২৮২/৫ (শেহজাদ ৫, আকমল ২১, বাবর ১২৫*, হাফিজ ৩২, মালিক ৯, সরফরাজ ২৬, ইমাদ ৪৩* ; গ্যাব্রিয়েল ২/৫০, হোল্ডার ০/৪৮, জোসেফ ১/৬৯, বিশু ১/৪০, নার্স ১/৪২, কার্টার ০/২৩)।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৪৪.৫ ওভারে ২০৮ (লুইস ১৩, ওয়ালটন ১০, হোপ ১৫, পাওয়েল ১১, কার্টার ১২, জেসন ১, হোল্ডার ৬৮, নার্স ৪৪, বিশু ১৬, জোসেফ ১৫, গ্যাব্রিয়েল০*; আমির ১/৩৬, জুনাইদ ১/৪১, হাসান ৫/৩৮, হাফিজ ২/২৩, ইমাদ ০/২৯, শাদাব ১/৪০)

ফল: পাকিস্তান ৭৪ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: বাবর আজম

সিরিজ: ৩ ম্যাচ সিরিজে ১-১ সমতা