দেশের ক্রিকেট নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে : বিসিবি সভাপতি

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : দেশের ক্রিকেট নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। কারা এই ষড়যন্ত্রের পেছনে কাজ করছে তাও জানেন বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের বিরুদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করছে দেশের বাইরের যারা আছে তাদের আমরা চিনি। আর দেশের মধ্যে, আমাদের দলের মধ্যে কেউ থাকলে তাও খুঁজে বের করা দরকার।’

এর আগে গতকাল ১১টি দাবি রেখে সবধরনের ক্রিকেট বর্জনের ঘোষণা দেন দেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা। সেখানে উপস্থিত ছিলেন সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদসহ জাতীয় ক্রিকেটারদের অনেকেই। এ সময় ১০ জন ক্রিকেটার মোট ১১টি দাবি পড়ে শোনান। পরে সবার পক্ষ থেকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ক্রিকেট বয়কটের ঘোষণা দেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের টেস্ট ও টি২০ অধিনায়ক সাকিব। একই সঙ্গে নারী ক্রিকেটারদেরও তাদের দাবি নিয়ে একাত্ম হওয়ার আহ্বান জানান বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা এ অলরাউন্ডার।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে আজ মঙ্গলবার অনির্ধারিত এক বৈঠক শেষে বিকেলে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বিসিবি সভাপতি। ক্রিকেটাররা দাবি-দাওয়া বোর্ডে না জানিয়ে গণমাধ্যমে জানানোয় ক্ষোভ প্রকাশ করে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘তাদের দাবি দাওয়া থাকলে আমাদের জানাতে পারতো। তা না করে গণমাধ্যমে জানালো। বিদেশ থেকে, আইসিসি থেকে আমাকে ফোন করছে। তারা তাদের উদ্দেশ্যে সফল হয়েছে।’

ক্রিকেটার ‘হঠাৎ এই ধর্মঘটে’ অবাক হয়ে গেছেন জানিয়ে বিসিবি সভাপতি বলছেন, ‘শ্রীলঙ্কা সফর শেষে তামিম-মাশরাফি বিমানবন্দরের লাউঞ্জে এসে বলল- পাপন ভাই আমাদের বেতন বাড়িয়ে দেন। আমি বললাম কত আছে? তারা জানালো আড়াই লাখ। তাদের একজন বললো ৫০ হাজার বাড়িয়ে দেন।… আমি সেখানে বসেই বললাম, আজ থেকে তোমাদের বেতন চার লাখ। তাদের সঙ্গে আমার সম্পর্কটা এমন। কোনদিন কোন খেলোয়ার বলতে পারবে, আমাদের কাছে কোন কিছু চেয়ে তারা পায়নি? ২৪ কোটি টাকা তাদের ১৫ জনকে বোনাস দেয়া হয়েছে; এটা কেউ কোনদিন দেয় নাকি? আমি বুঝি না, আমরা কী করছি আর আপনারা কী বলছেন? এটাতো আশ্চর্য ঘটনা! আর তারা এই টাকার জন্য খেলা বন্ধ করে দিবে আমারতো বিশ্বাসই হয় না।’

ক্রিকেটারদের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্কের বিভিন্ন উদাহরণ তুলে ধরে বোর্ড সভাপতি বলেন, ‘সব ক্রিকেটারের জন্যই আমার দরজা খোলা। আমিতো দূরে প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত তাদের একসেস আছে, তাদের দাবি দাওয়া থাকলে আমাদের জানাতে পারতো।’ বিসিবিকে কোনধরনের সুযোগ না দিয়ে ক্রিকেটারদের সরাসরি আন্দোলনে যাওয়াকে বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই দেখছেন পাপন।

ক্রিকেটারদের দাবি দাওয়ার বেশিরভাগই এরই মধ্যে বাস্তবায়ন হয়েছে আর কিছু বাস্তবায়নের পথে রয়েছে জানিয়ে বিসিবি বস বলেন, ‘তাদের দাবি দাওয়া থাকলে আমাদের কাছে আসলো না কেন? তারা জানে আমাদের কাছে আসলে আমরা তাদের দাবি মেনে নিবো। তাই তারা আসেনি। সামনে গুরুত্বপূর্ণ ভারত সফরের আগে এটা কেন করা হল? এর পেছনে অবশ্যই কেউ আছে। দেশের বাইরেতো আছেই, দেশের মধ্যেও আছে, দলের মধ্যেও দুএকজন থাকতে পারে। সবাইকে শনাক্ত করা হবে।’

এই ধর্মঘটের পেছনে কারা কলকাঠি নাড়ছে তা শিগগিরই প্রকাশ হবে জানিয়ে পাপন বলেন, ‘আমার ধারণা যারা গতকাল গণমাধ্যমে কথা বলেছে, তাদের অধিকাংশ ক্রিকেটারই না বুঝেই কথা বলেছে। তবে এর পেছনে কারা কলকাঠি নেড়েছে তাদের নাম শিগগিরই প্রকাশ হবে। ‘অটোমেটিকই’ তাদের নাম চলে আসবে।’

তিনি বলেন, ‘এতদিন কোন কিছুই ছিল না, সম্প্রতি দেশের ক্রিকেটের বেশ কিছু উন্নয়ন করা হচ্ছে। এতদিন কেউ কিছু বললো না, এখন যখন কাজ করছি তখন তারা আন্দোলনে গেল। এর কারণ কী?’

খেলোয়াররা তাদের দাবি দাওয়া নিয়ে বসতে চাইলে বিসিবি আলোচনায় বসতে আগ্রহী জানিয়ে সংসদ সদস্য পাপন বলেন, ‘আমাদের ক্যাম্প শুরু হচ্ছে। খেলোয়াররা না খেললে আমার কী করার আছে? তারা না খেললে লাভবান হবে কীভাবে? আর খেলার উন্নয়নের কথা বললে যে কোন জায়গায় আলোচনায় বসতে রাজি আছি।’

বিসিবি সভাপতি পাপন বলেন, ‘ক্রিকেট নিয়ে একটা মহলে চক্রান্ত হচ্ছে। তারা প্রথমে ভেবেছিল বিসিবিকে আক্রমণ করে, অন্যান্য পরিচালকদের আক্রমণ করে দেশের বাইরে আমাদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করবে। এটি শুরু হয়েছে বিসিবির একজন পরিচালক গ্রেপ্তারের পর। উনি গ্রেপ্তার হবার পর পুরো ব্যাপারটা নিয়ে বাইরের লোক ষড়যন্ত্র করছে। আইসিসির কাছে অভিযোগ করেছে। জিম্বাবুয়ের মতো আমাদের বোর্ডকে সাসপেন্ড করাতে চেয়েছে।’

তিনি দাবি করেন, এই ষড়যন্ত্রের কথা দুই-একজন ক্রিকেটার জানে। অন্যরা না জেনে ধর্মঘটে এসেছে। তারা প্রথম ষড়যন্ত্রে সফল না হয়ে দ্বিতীয় ধাপে ক্রিকেটারদের ব্যবহার করছে। ক্রিকেটাররা মিডিয়ার কাছে ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়ায় আইসিসি, এসিসি থেকে শুরু করে সব জায়গায় আমাদের জবাবদিহিতা করতে হচ্ছে। আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট করায় ওরা তাই সফল হয়েছে।’

বিসিবি সভাপতি বলেন, তারা একটি জায়গায় সফল হয়েছে। সেটা হলো ক্রিকেটের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে পেরেছে তারা। তবে বিসিবি সভাপতি বলেন, ক্রিকেটারদের সঙ্গে তাদের আলাপের পথ খোলা আছে।

x

Check Also

প্রসিকিউটর পদ থেকে তুরিন আফরোজকে অপসারণ

এমএনএ রিপোর্ট : পেশাগত অসদাচরণ, শৃঙ্খলা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজকে আন্তর্জাতিক ...

Scroll Up