নির্বাচনে আইপিইউ’র ভূমিকা চায় বিএনপি

40

এমএনএ রিপোর্ট : বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধিত্বকারী সংসদীয় ব্যবস্থা গড়তে ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ’র) সদস্য দেশগুলোকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি।

আজ সোমবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক স্পিকার ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার এই আহ্বান জানান।

নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এতে গতকাল রবিবার দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে নেয়া সিদ্ধান্ত তুলে ধরেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আইপিইউ সম্মেলন প্রসঙ্গে জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, দেশে অনুষ্ঠিত সংসদীয় রাজনীতির এই মহাসম্মেলনে বাংলাদেশের জনগণের প্রকৃত কোনো প্রতিনিধিত্ব নেই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য নামে যারা এ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন, তারা সবাই ভুতুড়ে ভোটারদের প্রতিনিধিত্ব করছেন।

এসময় বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের মাধ্যমে প্রতিনিধিত্বকারী সংসদীয় ব্যবস্থা গড়ে তুলতে আইপিইউ সদস্যদের নৈতিক অবস্থান গ্রহণের আহ্বান জানান সাবেক এই স্পিকার।

তিনি বলেন, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তাদের নৈতিক সমর্থন এদেশে সত্যিকার অর্থে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদান রাখবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

জমিরউদ্দিন সরকার ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনকে প্রহসনমূলক অভিহিত করেন। তিনি বলেন, ওই নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে ১৫৩ জনকে বিনা প্রতিদ্বিদ্বতায় ও বিনাভোটে নির্বাচিত বলে ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি আসনে মাত্র ৫ শতাংশ মানুষ ভোট দিয়েছেন।

সংসদের বর্তমান বিরোধী দলের সদস্যদের মন্ত্রিসভায় ঠাঁই দিয়ে এক নজিরবিহীন পদ্ধতি চালু করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন সাবেক এই স্পিকার।

বিএনপির এই নেতা আইপিইউ সম্মেলন চলাকালে রাজশাহী ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত মেয়রদের বরখাস্ত করার কঠোর সমালোচনা করেন।

গত শনিবার ঢাকায় বিশ্বের ১৬৪টি দেশের আইনসভার সংগঠন আইপিইউ’র ১৩৬তম সম্মেলন শুরু হয়েছে। পাঁচ দিনব্যাপী এ সম্মেলন আগামী মঙ্গলবার শেষ হবে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল সংবাদ সম্মেলনে আইপিইউ সম্মেলন প্রসঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির অবস্থান তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, যেসব দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র রয়েছে, তাদের প্রতিনিধিত্বকারী পার্লামেন্টের যেসব সদস্য আইপিইউ সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন তাদের অভিনন্দন জানিয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

মির্জা ফখরুল বলেন, তবে দেশের বর্তমান সংসদ জনগণের প্রতিনিধিত্ব না করা সত্ত্বেও ঢাকায় আইপিইউ সম্মেলন প্রহসন ছাড়া অন্য কিছু নয়।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর ১৫ জানুয়ারি নির্বাচনের প্রকৃত চিত্র জানিয়ে নবম সংসদের বিরোধীদলীয় চীফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক আইপিইউ সেক্রেটারি জেনারেল এন্ডার পি জনসনের কাছে একটি চিঠি দিয়েছিলেন।

আইপিইউ’র সভাপতি পদে বাংলাদেশের সাবের হোসেন চৌধুরীর নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, ‘যারা তাকে ভোট দিয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করেছেন, তারা জানতেন না তিনি বিনাভোটে নির্বাচিত একজন। জানলে তাকে নির্বাচিত করতেন না।’

গত রবিবার রাতে স্থায়ী কমিটির বৈঠকের নেয়া সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়মের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের নীরব ভূমিকার নিন্দা জানানো হয়েছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনের (সিইসি) ভূমিকায়ও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন বিএনপির নীতি নির্ধারকরা।

বৈঠকে সিলেট, মৌলভীবাজারসহ জঙ্গিবাদের ঘটনায় উদ্বেগ এবং র‌্যাবের এক কর্মকর্তার মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে।

এছাড়া ছাত্রদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম নুরুকে আইনশৃংখলা বাহিনী তুলে নিয়ে হত্যার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

কমিটি সিলেট ও রাজশাহী সিটি মেয়র ও হবিগঞ্জ পৌর মেয়রকে ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বরখাস্ত’ করার অভিযোগ করে তাদের বরখাস্ত আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে।

এছাড়া মোটা চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে উদ্বেগ জানিয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আহমেদ আজম খান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ।