পর্তুগালে দাবানলে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে ৬৫

52

এমএনএ ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : পর্তুগালে দাবানলে এ পর্যন্ত প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে ৬৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এতে আহত হয়েছেন আরো অনেকে। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। খবর সিএনএন।

স্থানীয় সময় শনিবার রাজধানী লিসবন থেকে ১৫০ মাইল উত্তরে এ ঘটনা ঘটে। যা সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে বড় ট্র্যাজেডির ঘটনা বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন।

খবরে বলা হয়, পেদ্রোগাও গ্রান্দি এলাকায় সড়ক দিয়ে গাড়িযোগে যাওয়ার সময় অনেকে দাবানলের শিকার হন।

প্রধানমন্ত্রী আন্তোনিও কস্তা বলেছেন, ‘সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে একটি ভয়াবহ ও খুবই দুঃখজনক ঘটনা প্রত্যক্ষ করলাম আমরা। প্রেসিডেন্ট মার্সেলো রেবেলো দে সুজা ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাচ্ছেন।’

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ গোমেজ জানান, অনেক জিপ গাড়ি দাবানল থেকে রেহাই পায়নি। ফলে গাড়ির ভেতরে দগ্ধ হয়ে বেশকিছু মানুষ মারা যায়।

এর আগে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ গোমেজ বলেছিলেন, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ৩০ জন গাড়ির ভেতরে বদ্ধ অবস্থায় দগ্ধ হয়ে মারা গেছেন। আর ২৭টি মৃতদেহ গাড়ির আশেপাশে পাওয়া গেছে। তিনজনের মৃত্যু হয়েছে ধোঁয়ায় দমবন্ধ হয়ে। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে আট বছর বয়সী এক কন্যা শিশুসহ ছয়জন দমকলকর্মী রয়েছেন। দুজন নিখোঁজ আছেন।

তীব্র তাপ ও প্রবল বাতাসের কারণে গত শনিবার বিকেল দিকে দাবানল আরও তীব্র হয়ে উঠেছে। স্থানীয় ঘরবাড়িসহ চারদিকে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে সেই আগুন। আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রায় ১ হাজার ৭০০ দমকলকর্মী চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

এ ছাড়া আগুন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে আজ ভোরে স্পেন থেকে জল নিয়ে দুটি উড়োজাহাজ যোগ দিয়েছে। বনে কীভাবে আগুন লেগেছে, তা এখনো জানা যায়নি। গত এক দশকের মধ্যে দেশটিতে এটি সবচেয়ে ভয়াবহ দাবানল।