পুঁজিবাজারে ৫ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন সূচক

এমএনএ অর্থনীতি রিপোর্ট : দেশের দুই পুঁজিবাজারে এক দিন পরই বড় দরপতন। আজ সোমবার সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস, লেনদেন শেষে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৮৮ পয়েন্ট। সূচকটি নেমে এসেছে ৪১২৩ পয়েন্টে, যা কিনা গত ৫ বছরের মধ্যে সূচকটির সর্বনিম্ন অবস্থান। এর আগে ২০১৫ সালের ৭ মে সূচকটি ৪ হাজার ১২২ পয়েন্ট হয়েছিল।

অপর দিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক কমেছে ২৩৮ পয়েন্ট।

গতকাল রবিবার লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স সূচকটি বাড়ে ১৫ পয়েন্ট। মোট লেনদেন হয় ২৬০ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

আজ মোট লেনদেন হয়েছে ২৮৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। হাতবদল হওয়া শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে মাত্র ২১টির, কমেছে ৩১৩টির এবং দর অপরিবর্তিত আছে ২০টির।

ডিএসইতে আজ লেনদেনের শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হলো লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ লিমিটেড, এডিএন টেলিকম লিমিটেড, রিং শাইন টেক্সটাইল লিমিটেড, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, বিকন ফার্মা, ওয়েস্টার্ন লিমিটেড শিপইয়ার্ড লিমিটেড, নর্দান জুট ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেড, স্টান্ডার্ড সিরামিকস, গ্রামীণফোন ও এস এস স্টিল লিমিটেড।

দর বৃদ্ধির শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হলো ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক লিমিটেড, ইবিএলএনআরবি মিউচুয়াল ফান্ড, রেনেটা, নাভানা সিএনজি, বিবিএস, বিকন ফার্মা, ফোনেক্স ফাইন্যান্স ফাস্ট মিউচুয়াল ফান্ড, ভ্যানগার্ড এএমএলবিডি ফাইন্যান্স মিউচুয়াল ফান্ড, এআইবিএল ফার্স্ট ইসলামিক মিউচুয়াল ফান্ড ও গ্রীন ডেল্টা।

দর কমার শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হলো এস এস স্টিল লিমিটেড, এমারেল্ড ওয়েল, মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক, তুংঘাই, রিং শাইন টেক্সটাইল লিমিটেড, এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড, ফাস ফাইন্যান্স, বিচ হ্যাচারি, প্রভাতি ইনস্যুরেন্স ও সিএপিএম আইবিবিএল ইসলামিক মিউচুয়াল ফান্ড।

অপরদিকে সিএসইতে হাতবদল হওয়া শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে মাত্র ২৮টির, কমেছে ২০৬টির এবং দর অপরিবর্তিত আছে ১৮টির।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, আজ সোমবার ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে। এ দিন ডিএসইতে মাত্র ২১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৩১৩টির। আর ২টির প্রতিষ্ঠানের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

এতে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৮৮ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ১২৩ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আগের দিন এ সূচকটি ১৫ পয়েন্ট বাড়ে। অবশ্য তার আগের পাঁচ কার্যদিবসে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক কমে ২৬১ পয়েন্ট হয়। এতে শেষ সাত কার্যদিবসে সূচকটি কমল ৩৩৪ পয়েন্ট।

এমন পতনের কবলে পড়ে ডিএসইএক্স ২০১৫ সালের ৭ মে’র পর সর্বনিম্ন অবস্থা নেমে গেছে। সেই সঙ্গে সূচকটি প্রায় শুরুর কাছাকাছি চলে এসেছে। ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক হিসেবে ডিএসইএক্স ৪ হাজার ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে যাত্রা শুরু করে ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি। এ হিসাবে শুরুর অবস্থান থেকে সূচকটি এখন মাত্র ৬৮ পয়েন্ট বেশি আছে।

প্রধান মূল্য সূচকের থেকেও করুন দশা বিরাজ করছে ডিএসইর অপর সূচকগুলোর। বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত সূচক ডিএসই-৩০ ২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি চালু হয়। সে সময় এ সূচকটি ছিল ১ হাজার ৪৬০ পয়েন্টে। ধারাবাহিক দরপতনের কারণে এ সূচকটি এখন ১ হাজার ৩৮৭ পয়েন্টে নেমে গেছে।

ডিএসইর আর একটি সূচক ‘ডিএসই শরিয়াহ্’। ইসলামী শরিয়াহ্ ভিত্তিক পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে ২০১৪ সালের ২০ জানুয়ারি এ সূচকটি যাত্রা শুরু করে। শুরুতে এ সূচকটি ছিল ৯৪১ পয়েন্টে। বৃহস্পতিবার লেনদেন শেষে সূচকটি ২০ পয়েন্ট কমে ৯২৯ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

এদিকে বৃহৎ বা বড় মূলধনের কোম্পানির জন্য চলতি বছরে ‘সিএনআই-ডিএসই সিলেক্ট ইনডেক্স (সিডিএসইটি)’ নামে নতুন সূচক চালু করেছে ডিএসই। বছরের প্রথম দিন ১ জানুয়ারি থেকে অফিসিয়ালি ডিএসইর ওয়েবসাইটে সূচকটি উন্মুক্ত করা হয়। ৪০টি কোম্পানি নিয়ে শুরু হওয়া সূচকটির ভিত্তি ভ্যালু ধরা হয় ১০০০ পয়েন্ট। তবে এখন সূচকটি ৮৩৩ পয়েন্টে নেমে এসেছে।

সূচকের করুন দশার মধ্যে দেখা দিয়েছে তারল্য সংকটও। গত বছরের ৫ ডিসেম্বরের পর ডিএসইর লেনদেন আর লেনদেন ৪শ’ কোটি টাকার ঘর স্পর্শ করতে পারেনি। বাজারটিতে লেনদেনের পরিমাণ ২শ’ থেকে ৩শ’ কোটি টাকার ঘরে আটকে আছে। সোমবার লেনদেন হয়েছে ২৮৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ২৬০ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

দেশের অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) দুরবস্থায় রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। বাজারটির সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৪৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৫৬৩ পয়েন্টে। লেনদেন হয়েছে ১৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেয়া ২৫২ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৩০টির, কমেছে ২০৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির দাম।

x

Check Also

গণতন্ত্র সূচকে ৮ ধাপ অগ্রগতি বাংলাদেশের

এমএনএ রিপোর্ট : যুক্তরাজ্যের লন্ডনভিত্তিক সাময়িকী দ্য ইকোনমিস্টের ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) তৈরি বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে ...

Scroll Up