বিশেষ রূপচর্চা ও সাজে হয়ে উঠুন অপরূপা

এমএনএ ফিচার ডেস্ক : ভালোবাসা দিবসে আধুনিক মেয়ে মাত্রই বিশেষ বিশেষ রূপচর্চা ও সাজগোজ করে হয়ে উঠেন অপরূপা। কারণ এ দিনটি এখন তরুণ-তরুণীিদের কাছে অধিক পছন্দের একটি বিশেষ দিন হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

আমাদের দেশে এমনেতেই বারো মাসে তেরো পার্বণ লেগেই থাকে। তার মাঝে কিছু বিশেষ দিন যোগ হয়েছে পশ্চিমাদের কাছ থেকে। এছাড়া একেকটি দিন একেক জনের কাছে একেক রকম গুরুত্ত্বপূর্ণ। কারো কাছে হয়তো পূজা বা বৈশাখ, কারো কাছে ঈদ বা বাঙ্গালীর জাতীয় দিবসগুলো, আবার কারো কাছে ভ্যালেন্টাইনডে গুরুত্ত্বপূর্ণ।

যাদের কাছে এই দিনটি গুরুত্ত্বপূর্ণ, তাদের সাজে কিছুটা ভিন্নতা থাকা চাই। এইদিনে আপনি আপনার ভালোবাসার মানুষটির কাছে নিজেকে আকর্ষণীয় করে তোলার জন্যই তৈরি হবেন। তাই বিশেষ দিনের বিশেষ সাজের জন্য জেনে নিন কিছু টিপস। ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে মোহাম্মদী নিউজ এজেন্সী (এমএনএ)-এর পাঠিকাদের জন্য এ বিশেষ টিপস্ ও পরামর্শগুলো দিয়েছেন রূপ-বিশেষজ্ঞ মোসাম্মৎ সেলিনা হোসেন

চুলের সাজ : সকালেই চুল ধুয়ে কন্ডিশন করে নিন। খোলা চুলে ওয়েভ কার্ল, স্পাইরাল করে নিতে পারেন। চাইলে কপাল ঘেঁষে চিকন বণি করে নিতে পারেন। অথবা পনিটেইল, ফ্রেঞ্চ বেণিও ভালো লাগবে। যারা শাড়ি পরবেন, তারা হাতখোঁপা করে নিতে পারেন। হরেক রকম চুলের কাঁটা গুঁজে খোঁপায় তুলতে পারেন নতুন ছন্দ। খেয়াল রাখবেন, চুল যেন সবসময় পরিষ্কার ও টিপটপ দেখায়। ব্যাগে পাঞ্চ ক্লিপ ও ব্রাশ রাখবেন। রাতের অনুষ্ঠান হলে হেয়ার স্পা করিয়ে নিতে পারেন।

মেকআপ : এই দিনে চোখের সাজকে প্রাধান্য দিন। মুখের মেকআপ হবে হালকা। বেস মেকাপ নিতে প্রথমে মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে একটু টোনার লাগিয়ে নিতে হবে। তারপর প্যান সটীক মুখে, ঘাড়ে, চোখের নিচে খুব ভালো করে হাত দিয়ে চেপে চেপে লাগাতে হবে।যদি কারো মুখে ব্রণের দাগ বা গর্ত থাকে সেখানে একটু বেশি পরিমাণে লাগিয়ে নিয়ে হাত দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর একটু সময় দিতে হবে মেকাপটা যাতে স্কিনে মিশে ভালোমতো। এরপর পাফটা একটু ভিজিয়ে নিয়ে প্যান কেক লাগিয়ে নিন আপনার গায়ের রঙের শেড এর সাথে মিলিয়ে।

যদি আপনি চান মেকাপটা একটু দীর্ঘস্থায়ী হোক এবং থাকুক অনেকক্ষণ ফ্রেশ তাহলে আপনি আপনার রেগুলার ফেস পাউডার ভালো করে মুখে, ঘাড়ে বুলিয়ে নিন। যাদের খুব বেশি মাত্রায় তৈলাক্ত ত্বক তাদের ক্ষেত্রে এটা খুব কাজে দেয়।

প্রথমে মুখে পাঁচ মিনিট ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে ত্বক নরম করে নিন। তারপর ফোঁটা ফোঁটা স্টিক ফাউন্ডেশন লাগিয়ে ভালোমতো মাখুন। হালকা ফেস পাউডার লাগান, তার ওপর পিচ কিংবা গোলাপি ব্লাশন বুলিয়ে নিন। হয়ে গেল সারা দিনের মেকআপ বেজ।

গালের মাঝ বরাবর থেকে কান পর্যন্ত খুব হালকা শেডের কোন ব্লাশ অন দিয়ে নিন। এতে করে ফেসটা শার্প লাগে দেখতে।

চোখের সাজ : চোখে স্মোকি সাজই চলছে এখন। তবে স্মোকি মানেই কালো নয়। তাতে যোগ হয়েছে হরেক রং। প্রথমে পানিরোধক কাজল চোখে টেনে নিন। শুধু কাজলরেখা ঘেঁষে সবুজ, বাদামি কিংবা ময়ূরকণ্ঠী নীল মেশান। নিচের পাতার ভেতরের অংশে ঘন কাজল দিয়ে নিচে বাদামি শ্যাডো টানুন। পাপড়িতে ঘন করে মাশকারা লাগিয়ে নিন। চোখের পুরো পাতায় শ্যাডো দিতে চাইলে কাজলের বদলে মোটা করে লাইনার টানুন। রাতে চোখে যে কোনো শ্যাডো পরতে পারেন। সে ক্ষেত্রে হাইলাইট হতে পারে সোনালি, বাদামি, রুপালি, পার্ল, তামাটে রঙের। চোখের কোণে একটু কালো শ্যাডো মিশিয়ে নিলেই গভীর হবে আপনার চোখের ভাষা। লেন্স পরতে পারেন। ত্বক বাদামি বা শ্যামলা রঙা হলে হ্যাজেল, বাদামি লেন্স ভালো মানাবে। ফরসা হলে বেছে নিন ছাই, নীল বা সবুজ রং।

এবার চোখে শেডের লাগিয়ে আইলাইনার বা কাজল দিয়ে সুন্দর করে চোখটা এঁকে নিন। আইব্রো পেন দিয়ে আইব্রো একটু শেপ করে নিন।

ঠোঁটের সাজ : সারা দিনের জন্য ঠোঁট সাজাতে অনেকেরই পছন্দ পেনসিল ম্যাট লিপস্টিক। দিন হোক আর রাত, লাল, কমলা কিংবা অন্য উজ্জ্বল রং আপনি বেছে নিতে পারেন। নিজে আত্মবিশ্বাসী থাকলে যে কোনো রঙেই আপনি হয়ে উঠবেন আকর্ষণীয়।

দিনের বেলা হলে বের হলে হালকা কোনো কালার আর সন্ধ্যা হলে ডিপ কোনো কালার এর আপনার পছন্দমতো লিপস্টিক দিন।

কিছু টিপস : উৎসবের বন্যায় শুধু ভাসলেই হবে না। খেয়াল রাখতে হবে স্বাস্থ্যেরও। সকালে ৩০ মিনিট ফ্রিহ্যান্ড ব্যায়াম, হালকা মেডিটেশন, প্রাণায়াম কিংবা যোগব্যায়াম করে নিলে সারা দিন শরীর ঝরঝরে থাকবে। আজ হাঁটা হবে অনেক পথ। তাই পায়ের জুতা আরামদায়ক হওয়া চাই। বাইরে কম ক্যালরির খাবার যেমন স্যান্ডউইচ পাস্তা, কম পনির দেওয়া পিৎজা খান। পানি বা জুস খাবেন। এমৌসুমে বাতাসে প্রচুর ধুলাবালি থাকে। যাদের অ্যাজমা বা অ্যালার্জি আছে, তারা মাস্ক এবং ইনহেলার নিতে ভুলবেন না।

x

Check Also

থাই সরপুঁটি চাষ করার আধুনিক পদ্ধতি

এমএনএ ফিচার ডেস্ক : থাই সরপুঁটি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এক বিশেষ প্রজাতির মাছ। ১৯৭৭ সালে থাইল্যান্ড ...

Scroll Up