বিশ্বে বায়ুদূষণকারী দেশগুলোর তালিকার শীর্ষে বাংলাদেশ

এমএনএ রিপোর্ট : বায়ুদূষণকারী দেশগুলোর তালিকায় গতবারের মতো এবারও বিশ্বে শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ। অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি দূষিত রাজধানীর তালিকায় ঢাকার অবস্থান গতবারের মতোই দ্বিতীয়তে রয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার বায়ুমানসংক্রান্ত তথ্য সেবাদাতা আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান আইকিউএয়ারের ‘২০১৯ ওয়ার্ল্ড এয়ার কোয়ালিটি রিপোর্ট’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। বায়ুদূষণ নিয়ে কাজ করা যুক্তরাষ্ট্র ও সুইজারল্যান্ডভিত্তিক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান আইকিউএয়ার থেকে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে। ২০১৯ সালে বিশ্বের ৯৮টি দেশের সার্বক্ষণিক বায়ুর মান পর্যবেক্ষণ করে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে।

বাতাসে ক্ষুদ্র বস্তুকণা বা পার্টিকুলেট ম্যাটার (পিএম) ২ দশমিক ৫উপস্থিতি বিবেচনায় ৮৩ দশমিক ৩ স্কোর নিয়ে দূষিত রাজধানীর তালিকায় নয়াদিল্লির পরে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। এক্ষেত্রে শীর্ষে থাকা ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির স্কোর ৯৮ দশমিক ৩। এ তালিকায় দ্বিতীয়বারের মতো শীর্ষে অবস্থান করছে প্রতিবেশী দেশের রাজধানী শহরটি।

তালিকায় থাকা শীর্ষ ১০ দেশের সবই এশিয়ার। বাংলাদেশের পর শীর্ষ তালিকায় থাকা অন্য দেশগুলো হলো পাকিস্তান দ্বিতীয়, মঙ্গোলিয়া তৃতীয়, আফগানিস্তান চতুর্থ, ভারত পঞ্চম, ইন্দোনেশিয়া ষষ্ঠ, বাহরাইন সপ্তম, নেপাল অষ্টম, উজবেকিস্তান নবম এবং ইরাক দশম স্থানে রয়েছে।

অন্যদিকে সবচেয়ে ভালো বায়ুর তালিকায় শীর্ষে রয়েছে ক্যারিবীয় বাহমাস দ্বীপপুঞ্জ। বাহমাসের পর শীর্ষ পাঁচটি দেশের মধ্যে পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিন আইল্যান্ড, আইসল্যান্ড, ফিনল্যান্ড ও এস্তোনিয়া।

প্রতিবেদনটি তৈরি হয়েছে বিভিন্ন শহরের সরকারি ও বেসরকারিভাবে প্রকাশিত তাত্ক্ষণিক বা প্রায় তাত্ক্ষণিক সময়ের সংগৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে। এতে বলা হয়েছে, বিশ্বের ৯০ শতাংশ মানুষ যে বাতাস শ্বাস-প্রশ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করছে, তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত বায়ুমানের নিচে। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা মানুষের বড় একটি অংশই বায়ুমান সম্পর্কিত তথ্যপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত।

প্রতিবেদনের তথ্য বলছে, ক্রমাগত বায়ুদূষণের ফলে দক্ষিণ এশিয়া, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও পশ্চিম এশিয়ার জীবনমানের ওপর মারাত্মক চাপ পড়ছে। এ অঞ্চলের শহরগুলো বায়ুদূষণের ফলে চরম ঝুঁকিতে আছে। ২০১৯ সালে বিশ্বের দূষিত ৩০টি শহরের মধ্যে ২১টি ভারতের। আর শীর্ষ ৩০-এর ২৭টির অবস্থান দক্ষিণ এশিয়ায়ই। এমনকি ৩০টি শহরের সবই এশিয়ার বিভিন্ন দেশে অবস্থিত।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নগরবাসীর কাছে যানজটের পাশাপাশি আরেক যন্ত্রণার নাম বায়ুদূষণ। মাত্রাতিরিক্ত দূষণের কবলে নগরজীবন বিভীষিকাময় হয়ে উঠেছে। বাড়িয়ে তুলছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে শিশু, বৃদ্ধ ও শ্বাসতন্ত্রের রোগীরা।

এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স (একিউআই) ৫১ থেকে ১০০ স্কোর থাকলে বাতাসের মানকে গ্রহণযোগ্য ধরা হয়। সেখানে সাম্প্রতিক সময়ে রাজধানীর একিউআই স্কোর ৪০০ ছাড়াতে দেখা গেছে। বিশ্ব একিউআইয়ের তথ্য অনুযায়ী এ বছর জানুয়ারিতে ঢাকার বাতাসের সর্বোচ্চ স্কোর ছিল ৩১৯। তবে ফেব্রুয়ারিতে ঢাকার বাতাসের স্কোর কখনো ২০০-এর নিচে নামেনি। এ সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ স্কোর দাঁড়িয়েছিল ৪৭৭। ঢাকায় ইউএস কনস্যুলেটের ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী এ অবস্থা বিদ্যমান থাকলে একিউআইয়ের সর্বোচ্চ স্কোর ৫০০ ছাড়াতেও পারে।

প্রতিনিয়ত বায়ুদূষণে ফুসফুসের অক্সিজেন গ্রহণক্ষমতা কমে শ্বাসকষ্ট ক্রমাগত বাড়ে বলে জানান ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. খান আবুল কালাম আজাদ। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, প্রথমে শ্বাসনালি ও চোখে সমস্যা তৈরি করে। ফলে অ্যাজমা ও নিউমোনিয়ার রোগীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এছাড়া দীর্ঘমেয়াদে এ দূষিত বায়ু গ্রহণ ব্রঙ্কাইটিস থেকে ফুসফুস ক্যান্সারের কারণ হতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এদিকে বায়ুদূষণের কারণে ক্রনিক অবস্ট্রাক্টিভ পালমোনারি ডিজিজ (সিওপিডি) বেশি দেখা দেয় বলে জানান এ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

দূষণের মাত্রা দিন দিন বেড়ে চললেও কর্তৃপক্ষ কার্যত কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না এমন অভিযোগ রয়েছে পরিবেশবিদদের। ঢাকার উন্নয়ন প্রকল্পকে ঘিরে সকাল-বিকাল পানি ছিটানো হলেও আশানুরূপ ফল দৃশ্যমান নয়। এ অবস্থায় সিটি করপোরেশনের পানি ছিটানোর কাজে সার্বক্ষণিক তদারক এবং বাতাসের মান স্বাভাবিক ও জীবনযাত্রায় স্বস্তি ফেরাতে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলছেন সংশ্লিষ্টরা। দূষণের মাত্রা যেভাবে বেড়েছে তা নিয়ন্ত্রণ করতে হলে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গাড়ির কালো ধোঁয়া কমানো ও অপরিকল্পিত নির্মাণকাজের লাগাম টেনে ধরা প্রয়োজন বলে মনে করেন অনেকে।

x

Check Also

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আইসিইউতে 

এমএনএ ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে হাসপাতালে ভর্তি করার ...

Scroll Up