‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’-এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

এমএনএ রিপোর্ট : ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় উদ্বোধনের পর পরই আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করল বেনাপোল-ঢাকা রুটে দেশের প্রথম প্রতিবন্ধী বান্ধব আন্তঃনগর ট্রেন ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’। এর আগে বেনাপোল-ঢাকা-বেনাপোল রুটে ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বুধবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাঁশিতে ফু দিয়ে এবং সবুজ পতাকা উড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী ট্রেন চলাচলের উদ্বোধন করেন।

ঢাকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। স্বাগত বক্তব্য দেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোফাজ্জল হোসেন। এছাড়া রেলপথ উন্নয়নের ওপর একটি ভিডিও প্রদর্শন করা হয়।

বেনাপোল এক্সপ্রেস উদ্বোধন উপলক্ষে সকাল থেকে বেনাপোলের বিভিন্ন এলাকা হতে শত শত লোক মিছিল নিয়ে বেনাপোল রেল স্টেশনে এসে জড়ো হয়। পুরো রেল স্টেশনটি জনসমুদ্রে রুপ নেয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ট্রেন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে করতালিতে ও বিভিন্ন স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে রেল স্টেশন এলাকা। রেলওয়ে স্টেশন বর্ণিল সাজে সাজানো হয়। প্ল্যাটফর্মের ওপরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। হরেক রকম ফুল দিয়ে গোটা ট্রেনটি সাজানো হয় নান্দনিক সাজে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে সরাসরি যুক্ত হন যশোরের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক হোসাইন মোহাম্মদ শওকত, বেনাপোলের সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী আলী কদর সাগর ও বেনাপোল হাইস্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী তনু আফসানা সাদ।

তারা নতুন এই ট্রেনটি উদ্বোধন করায় এলাকার জনসাধারণ ও ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি দূরের যাত্রীদের সুযোগ-সুবিধার কথা জানান এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাসিমুখে তাদের ধন্যবাদ জানান। আগামীতে পদ্মাসেতু নির্মাণ হলে বেনাপোলে আরও একটি ট্রেন চলাচলের আশ্বাস দেন তিনি। সেই সঙ্গে বেনাপোল বন্দরকে আরও আধুনিয়কায়ন করার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।

ট্রেনটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশনে উপস্থিত ছিলেন যশোর-১ (শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন, যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা) আসনের সংসদ সদস্য মেজর জেনারেল (অব.) ডা. নাসির উদ্দিন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. শামসুজ্জামান ও বাংলাদেশ রেলওয়ের ক্যারেজ সংগ্রহ প্রকল্পের পরিচালক প্রকৌশলী হারুন-অর-রশিদ, রাজশাহী জোনের সিগন্যাল অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন চিফ ইঞ্জিনিয়ার অসিম কুমার তালুকদার, বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার মোহাম্মদ বেলাল হোসাইন চৌধুরী, যশোরের পুলিশ সুপার মঈনুল হক, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, শার্শা উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল হক মঞ্জু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ নুরুজ্জামানসহ রেল ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নতুন ট্রেনে ব্রড গেজ কোচসমূহ এডিবির অর্থায়নে ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য মিটার গেজ ও ব্রড গেজ প্যাসেঞ্জার ক্যারেজ সংগ্রহ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ইন্দোনেশিয়া থেকে সংগৃহীত হয়েছে। দ্রুতগতির এ ট্রেন পরিচালনার ফলে বেনাপোল-ঢাকা-বেনাপোল রুটে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণের নিরাপদ আসা-যাওয়া সহজতর, দ্রুততর ও আরামদায়ক হবে।

সংগৃহীত কোচসমূহের অন্যতম নতুন বৈশিষ্ট্য হলো বায়ো-টয়লেট সংযোজন। ট্রেনটিতে প্রতিবন্ধী যাত্রীদের হুইল চেয়ারসহ চলাচলের সুবিধার্থে থাকছে প্রশস্ত দরজা (মেইন ও টয়লেট দরজা) এবং নির্ধারিত আসনের সুবিধা। যাত্রীসাধারণের জন্য আধুনিক ও মানসম্মত চেয়ার, বার্থ, স্টেয়ার, পার্সেল র্যাক, টিভি মনিটর হ্যাংগার, ওয়াই-ফাই রাউটার হ্যাংগার, মোবাইল চার্জারের ব্যবস্থা রয়েছে।

‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি ১২টি কোচ দিয়ে চলবে। ট্রেনটিতে এসি সিট, এসি চেয়ার ও শোভন চেয়ার শ্রেণির সর্বমোট ৮৯৬টি (৭৯৫ নম্বর ট্রেনের ক্ষেত্রে) এবং এসি বার্থ, এসি চেয়ার ও শোভন চেয়ার শ্রেণির সর্বমোট ৮৭১টি (৭৯৬ নম্বর ট্রেনের ক্ষেত্রে) আসনের ব্যবস্থা থাকবে। বেনাপোল ট্রেনের সাপ্তাহিক বন্ধের দিন (৭৯৫) বুধবার ও (৭৯৬) বৃহস্পতিবার।

ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ছাড়বে দুপুর ১টায়, ঢাকায় পৌঁছাবে রাত ৯টায় এবং ঢাকা থেকে ছাড়বে রাত ১২টা ৪০ মিনিটে, বেনাপোল পৌঁছাবে সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে। বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনে বেনাপোল থেকে ঢাকা পর্যন্ত শোভন চেয়ারের টিকিটের মূল্য ৫৩৪ টাকা, এসি (শীতাতপনিয়ন্ত্রিত) চেয়ারের টিকিটের মূল্য ১ হাজার ১৩ টাকা, এসি প্রথম শ্রেণির টিকিটের মূল্য ১ হাজার ২১৩ টাকা ও এসি বার্থের টিকিটের মূল্য ১ হাজার ৮৬৯ টাকা।

বেনাপোল এক্সপ্রেসে থাকবে নতুন ১২টি কোচ, তার মধ্যে দুটি থাকবে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। প্রচলিত সুইং ডোরের পরিবর্তে এসব কোচে থাকছে নিরাপদ স্লাইডিং দরজা।

উদ্বোধন শেষে দুপুরবেনাপোল এক্সপ্রেসে থাকবে নতুন ১২টি কোচ, তার মধ্যে দুটি থাকবে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। প্রচলিত সুইং ডোরের পরিবর্তে এসব কোচে থাকছে নিরাপদ স্লাইডিং দরজা। সোয়া ১টায় ‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি বেনাপোল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে। ট্রেনটিতে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক শামসুজ্জামানের নেতৃত্বে সরকারি কর্মকর্তারা ছিলেন। বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত বেনাপোল থেকে ১০৪টি টিকিট বিক্রি হয়েছে বলে বেনাপোল রেল স্টেশন মাস্টার সাইদুজ্জামান জানিয়েছেন।

x

Check Also

টাকার অবমূল্যায়ন শুরু করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

এমএনএ রিপোর্ট : দীর্ঘদিন বিনিময়মূল্য ধরে রাখার পর মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়ন শুরু করেছে ...

Scroll Up