যুক্তরাজ্যে গভীর রাতে মসজিদে মসজিদে হামলা!

এমএনএ রিপোর্ট : যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামের ওয়েস্ট মিডল্যান্ডে পাঁচটি মসজিদে হাতুড়ি হামলা চালিয়েছে অজ্ঞাত অস্ত্রধারীরা। মসজিদে হাতুড়ি নিয়ে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের এই হামলায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তবে মসজিদে জানালা, দরজা ভাঙচুর করেছে অস্ত্রধারী অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা।

গতকাল বুধবার রাতে রাতে উইটনের উইটন ইসলামিক সেন্টারসহ কয়েকটি মসজিদে এসব হামলার ঘটনায় আতঙ্ক তৈরি হয়েছে বার্মিংহামের মুসলিম সম্প্রদায়ের মাঝে। তারা শুক্রবারের জুমআর নামাজের সময় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দেশটির পুলিশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

মসজিদে চালানো এ হামলায় মসজিদগুলোর সাতটি জানালা ও দুটি দরজা ভেঙে যায়। দুর্বৃত্তদের আক্রমণে মসজিদগুলোর দরজা, জানালাসহ বিভিন্ন স্থাপনা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। খবর ইয়ানি শাফাকের।

ব্রিটিশ পুলিশ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ব্রিটিশ টিভি চ্যানেল স্কাই নিউজ জানায়, রাত আড়াইটার দিকে বার্মিংহামের বুচেরফিল্ড স্ট্রিটে প্রথম মসজিদে হামলা চালানোর অভিযোগে তিনি পান। হামলা শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই তিনি সেখানে পৌঁছান। প্রথম হামলার ৪২ মিনিট পর ইডিংটন, অ্যাস্টন এবং ব্রডওয়ে এলাকার কয়েকটি মসজিদে হামলার খবর পুলিশের কাছে আসে।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্তও ব্রিটিশ পুলিশ এই আক্রমণের সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি।

ওয়েস্ট মিডল্যান্ড কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট এ ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে। ফরেনসিক কর্মকর্তারা এসব হামলার ঘটনায় আলামত সংগ্রহ ও সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করছেন।

মসজিদের ইমাম বলছেন, রাত দেড়টা থেকে ২ টার দিকে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। ওয়েস্ট মিডল্যান্ড পুলিশ বলছে, রাতে তারা হামলা হতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছিলেন। তবে গভীর রাতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুরের উদ্দেশ্য সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ

উইটন রোডের ব্রোডওয়ে, স্লেড রোডের কাছে একটি মসজিদে হামলা হয়েছে রাত ২টা ৩২ মিনিটের দিকে। রাত ৩টা ১৪ মিনিটের দিকে আর্ডিংটনের একটি মসজিদে হামলার খবর আসে পুলিশের কাছে। পরে পুলিশ ওই এলাকায় পৌঁছে টহল শুরু করে।

গভীর রাতে মসজিদগুলোতে হামলার ঘটনায় বার্মিংহামের মুসলিম সম্প্রদায়ের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবারের জুমার নামাজ উপলক্ষ্যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার জন্য দেশটির পুলিশের প্রতি তারা আহ্বান জানিয়েছেন।

ব্রোমফর্ড অ্যান্ড হজ হিল ওয়ার্ডের লেবার দলীয় কাউন্সিলর মজিদ মাহমুদ অনলাইনে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদের ছবি পোস্ট করেছেন।

টুইটারে তিনি বলেছেন, অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে গভীর রাতে উইটন রোড ইসলামিক সেন্টার আক্রান্ত হয়েছে। এই সেন্টারের জানালা হাতুড়ি দিয়ে ভেঙে ফেলেছে দুর্বৃত্ত।

তিনি বলেন, আমি গত সপ্তাহে বলেছি যে, ক্রাইস্টচার্চে সন্ত্রাসী হামলার পর মুসলিমরা আতঙ্কিত। আমাদের সহায়তা দরকার। তার কথার সুর শোনা গেল উইটন ইসলামিক সেন্টারের ইমাম শারাফাত আলীর কণ্ঠে। ৬৬ বছর বয়সী এই ইমাম বলেন, এটা অত্যন্ত ভয়াবহ। মুসলিম সম্প্রদায়ের আতঙ্কের মধ্যে আছে।

শারাফাত আলী বলেন, আমরা এখানে ৩০ বছর ধরে বসবাস করছি। প্রত্যেকদিন সকালে অন্তত ৪০ জন মুসল্লি এখানে নামাজ আদায় করেন। গত শুক্রবার এই সংখ্যা ২০০ থেকে ৩০০ ছাড়িয়ে যায়। তিনি বলেন, আগামীকাল শুক্রবার জুমআর নামাজ। কিন্তু আমি বুঝতে পারছি না, কেন এসব ঘটছে। আমাদের আরো নিরাপত্তা দেয়ার জন্য পুলিশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি।

বার্মিংহামের লেডিউডের লেবার দলীয় এমপি শাবানা মাহমুদ টুইটারে বলেছেন, বার্মিংহামজুড়ে মসজিদে হামলার যে খবর আসছে তা সত্যিই ভয়ানক। আমি পুলিশের প্রধান কনস্টেবলের সঙ্গে কথা বলেছি। এছাড়া মুসলিম নেতার সেঙ্গ দিনে আলোচনা করবো। আমি সকল বাসিন্দাদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছি।

সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৮ সালে ব্রিটেনে এ ধরনের ১২ শতাধিক ঘৃণ্য আক্রমণ হয়েছে। যা আগের বছরের তুলনায় ২৬ শতাংশ বেশি।

x

Check Also

বদলে যাচ্ছে ঢাকা সার্কুলার রুটের গতিপথ

এমএনএ রিপোর্ট : ঢাকা সার্কুলার রুটের একাংশের নকশায় কিছুটা পরিবর্তন আনায় বদলে যাচ্ছে এর গতিপথ। ...

Scroll Up