শুরুতেই চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে ভারত

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে শুরুতেই চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে ভারত। দলীয় মাত্র ৫ রানে দুই ওপেনার রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি ও লোকেশ রাহুলের উইকেট হারিয়ে শুরুতেই চাপের মধ্যে পড়েছে দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারত।

রোহিত শর্মাকে আউট করে নিউজিল্যান্ড শিবিরে স্বস্তি এনে দেন ম্যাট হেনরি। দলের ব্যাটিংয়ের সবচেয়ে বড় ভরসা রোহিত শর্মা আর বিরাট কোহলি ফিরে গেছেন ইনিংসের ১৬ বল পেরুতেই।

চলতি বিশ্বকাপে ক্যারিয়ারেরর সেরা ফর্মেই ছিলেন রোহিত শর্মা। আগের তিন ম্যাচে ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার বিপক্ষে টানা তিনটি সেঞ্চুরি করেছিলেন রোহিত। আজ আরও একটি সেঞ্চুরি পেলে বিশ্বকাপে কুমার সাঙ্গাকারার মতো দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাক টু ব্যাক চারটি সেঞ্চুরির ইতিহাস গড়ার সুযোগ ছিল রোহিতের।

ম্যাট হেনরির দুর্দান্ত এক সুইংয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছেন ভারতের মারকুটে এই ওপেনার। করেছেন মাত্র ১ রান। পরের ওভারে এসে কিছু বোঝার আগেই আরেক ব্যাটিং ভরসা ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন ট্রেন্ট বোল্ট। কোহলিও করেন ১ রান। তারপর হেনরির দ্বিতীয় শিকার লোকেশ রাহুল (০)। তাতে ৫ রানেই ৩ উইকেট নেই ভারতের।

চতুর্থ ওভারের প্রথম বলেই কটবিহাইন্ড হয়ে ম্যাট হ্যানরির দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন লোকেশ রাহুল। দলীয় ৩.১ ওভারে রোহিত-কোহলি-রাহুলের উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে যায় কপিল দেবের উত্তরসূরীরা।

অথচ বৃষ্টি বিঘ্নিত বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে লক্ষ্যটা নাগালের মধ্যেই ছিল ব্যাটিং শক্তিশালী দল ভারতের। ২৪০ রানের সহজ টার্গেটই পেয়েছিল তারা।

ভারতীয় বোলারদের তোপে প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৩৯ রান তুলতে সক্ষম হয়েছে নিউজিল্যান্ড।

কয়েক দিন বিরতি দিয়ে ফের বিশ্বকাপে হানা দিয়েছে বৃষ্টি। এর কবলে পড়ে মঙ্গলবার ভারত-নিউজিল্যান্ড সেমিফাইনাল গড়ায় রিজার্ভডেতে। ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে গতকাল ৪৬.১ ওভার খেলা হয়। এসময়ে ৫ উইকেটে ২১১ রান তোলেন কিউইরা।

আজ বুধবার সেখান থেকেই খেলা শুরু হয়। রস টেইলর ৬৭ ও টম লাথাম ৩ রান নিয়ে ব্যাটিং শুরু করেন। তবে শুরুটা শুভ হয়নি তাদের। ব্যক্তিগত ঝুলিতে ৭ রান যোগ করে রবীন্দ্র জাদেজার অসাধারণ থ্রোতে ফেরেন টেইলর।

দলীয় ২২৫ রানেই ভুবনেশ্বর কুমারের বলে সেই জাদেজার তালুবন্দি হয়ে ফেরেন লাথাম। এতে নিউজিল্যান্ডের রানে বাঁধ পড়ে। বাকি সময়ে টেলএন্ডারদের কেউই ঝড় তুলতে পারেননি। অবশ্য সেই সুযোগও ছিল না। হাতে ছিল মাত্র কয়েক ওভার।

তবে চেষ্টার কমতি ছিল না ব্ল্যাক ক্যাপসদের। কিন্তু জসপ্রিত বুমরাহ ও ভুবনেশ্বর কুমারের পেস তো তা কাজে আসেনি।

x

Check Also

১১৭ দেশের মধ্যে ক্ষুধার সূচকে বাংলাদেশ ৮৮তম

এমএনএ রিপোর্ট : বিশ্ব ক্ষুধা সূচকে ১১৭ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান গত বছরের চেয়ে দুই ...

Scroll Up