শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : হোয়াইটওয়াশের লজ্জা এড়ানোর জন্য লক্ষ্য ২৯৫ রান। এ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই  ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে এই রান তাড়া করা কঠিন কাজ। কঠিন কাজটা সম্ভব করতে হলে ব্যাটিং ভালো করতে হতো বাংলাদেশের। কিন্তু শুরুতেই আউট হয়ে ফেরেন দলের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও এনামুল হক বিজয়। এরপর ফেরেন দলের মূল ভরসা মুশফিকুর রহিম। দলকে এ ম্যাচেও ভরসা দিতে পারেননি মোহাম্মদ মিঠুন।

প্রথম ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করতে নামা শ্রীলঙ্কা সংগ্রহ করেছিল ৩১৪ রান। জবাবে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছিল ২২৩ রানে। দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ করেছিল ২৩৮ রান। জবাবে ৩২ বল হাতে রেখেই ৭ উইকেটে জিতে গিয়েছিল লঙ্কানরা। এই ম্যাচে ২৯৫ রানের লক্ষ্য টপকাতে নেমে যে শুরুটা করলো তামিম ইকবালের দল, তাতে জয় সুদুর পরাহতই মনে হচ্ছে।

২৯৫ রানের বিশাল লক্ষ্য পাড়ি দিতে নেমে যেখানে দুই ওপেনারের তরফ থেকে দায়িত্বশীল ব্যাটিং আশা করেছিল সবাই, সেখানে তারা পরিচয় দিলেন চরম দায়িত্বহীনতার। আউট হলেন ২ রানে। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই কাসুন রাজিথার বলে উইকেটের পেছনে কুশল পেরেরার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। টানা ৬ ম্যাচে বোল্ড হওয়ার পর সপ্তম ম্যাচে এসে তামিম এবার আর বোল্ড হলেন না।

বরাবরের মত আজও ব্যর্থ ওপেনার তামিম ইকবাল। এই সিরিজের তিন ম্যাচে তিনি করলেন কেবল ২১ রান (০ + ১৯ + ২)। বিশ্বকাপেও ছিলেন ব্যর্থ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কেবল একটি মাত্র হাফ সেঞ্চুরি করতে পেরেছিলেন তিনি (৬২ রান)। এছাড়া ব্যর্থতার ধারাবাহিকতাকেই টেনে আনছেন তামিম বার বার।

দীর্ঘ এক বছর পর ওয়ানডে খেলার সুযোগ পেলেন ওপেনার এনামুল হক বিজয়। কিন্তু ফিরে আসার মান রাখতে পারেননি তিনি। আউট হলেন কেবল ১৪ রান করে। বল খেলেছেন ২৪টি। কোথায় নিজেকে প্রমাণের জন্য উজাড় করে দেবেন, তা না উল্টো উইকেট বিলিয়ে দিয়ে এলেন কাসুন রাজিথার বলে ফার্নান্দোর হাতে ক্যাচ দিয়ে।

দলীয় ৪৬ রানের মাথায় ফিরে যান মুশফিকও। আগের দুই ম্যাচে ভরসার প্রতীক হয়ে ছিলেন এই ব্যাটসম্যান। দ্বিতীয় ম্যাচে তো তার অপরাজিত ৯৮ রানের ওপর ভর করেই বাংলাদেশ ২৩৮ রানের পুঁজি পেয়েছিল। কিন্তু এবার আর পারলেন না মুশফিক। দাসুন সানাকার বল খেলতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লাগিয়ে ক্যাচ দিলেন প্রথম স্লিপে কুশল মেন্ডিসের হাতে। ১৫ বলে ১০ রান করে ফিরে গেলেন মুশফিক।

এ রিপোর্ট লেখার সময় বাংলাদেশের রান ১৬ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ৬০ রান। সৌম্য সরকার ২৫ রান করে ক্রিজে আছেন। তার সঙ্গী মাহমুদুল্লাহ। এর আগে তামিম ইকবাল ২ রান করে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। আনামুল হক আউট হন ১৪ রান করে। দলের রান তখন ২৯। আগের দুই ম্যাচে ফিফটি করা মুশফিক ১০ রান করে দলের ৪৬ রানে আউট হন। মিঠুন ফেরেন মাত্র ৪ রান করে।

টস জিতে এ ম্যাচে দারুণ ব্যাটিং করে শ্রীলংকা। শুরুতে উইকেট হারায় তারা। আভিস্কা ফার্নান্দো ফিরে যান ৬ রান করে। সেখান থেকে কুশল পেরেরা এবং দিমুথ করুনারত্নে ৮৩ রানের জুটি গড়েন। করুনারত্নে করেন ৪৬ রান। পেরেরা আউট হন ৪২ রান করে। পরে কুশল মেন্ডিস এবং অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ১০১ রানের জুটি গড়েন। মেন্ডিস খেলেন ৫৪ রানের ইনিংস।

ম্যাথুস খেলেন ৮৭ রানের ইনিংস। দাশুন সানাকা ১৪ বলে ৩০ রান করেন। বাংলাদেশের হয়ে সৌম্য সরকার এবং শফিউল ইসলাম নেন তিনটি করে উইকেট। শ্রীলংকা শেষ দশ ওভারে একশ’র ওপরে রান নিয়েছে। তামিমের নেতৃত্ব নিয়ে এ ম্যাচেও থাকছে প্রশ্ন। মিরাজকে শেষ দিকে বোলিং করিয়েছেন। শেষটা টেনেছেন সৌম্য। তিনি বল করেছেন ৯ ওভার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা : ৫০ ওভারে ২৯৪/৮ (ফার্নান্দো ৬, করুনারত্নে ৪৬, কুসল পেরেরা ৪২, কুসল মেন্ডিস ৫৪, ম্যাথিউস ৮৭, শানাকা ৩০, জয়াসুরিয়া ১৩, হাসারাঙ্গা ১২*, দনাঞ্জয়া ০, রাজিথা ০*; শফিউল ১০-২-৬৮-৩, রুবেল ৯-১-৫৫-১, তাইজুল ১০-১-৩৪-১, মিরাজ ৯-০-৫৯-০, সৌম্য ৯-০-৫৬-৩, মাহমুদউল্লাহ ৩-০-২২-০)।

x

Check Also

তাইওয়ানের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের ৬৬ যুদ্ধবিমান বিক্রি

এমএনএ ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক : চীনের সঙ্গে চলমান ‘বাণিজ্য যুদ্ধ’সহ বিভিন্ন সংকটের মধ্যেই তাইওয়ানের কাছে ৬৬টি ...

Scroll Up