দেশীয় পোশাকে এবারের বৈশাখী আয়োজন

এমএনএ ফিচার ডেস্ক : বাংলা নববর্ষ ১৪২৩ বরণ করার জন্য দেশের সব জায়গায় শুরু হয়েছে নানা আয়োজন। প্রতিষ্ঠিত দেশীয় পোশাক-ঘরগুলোর পাশাপাশি অন্যান্য দোকানও সেজেছে বৈশাখী সাজে। ঢাকার শীর্ষ ফ্যাশন হাউসগুলোর এবারের  বৈশাখী আয়োজন নিয়ে একিটি বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করেছেন-মোসাম্মৎ সেলিনা হোসেন

Boishakh-Ayojon-5

পহেলা বৈশাখ বাংলাদেশের জাতীয় উৎসব। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের উৎসব এটি। দিন দিন উৎসবটির সার্বজনীনতা বা ব্যাপকতা যেন বাড়ছে। পহেলা বৈশাখের নানা অনুষঙ্গের মধ্যে একটি হচ্ছে নতুন পোশাক কেনা। এ নতুন পোশাক বলতে এখন কেবল শাড়ি আর পাঞ্জাবি বোঝাচ্ছে না। বিভিন্ন ধরনের পোশাক কিনছে শহুরে মানুষ। ঢাকার ফ্যাশন হাউজগুলোও এপ্রিলের শুরু থেকে পহেলা বৈশাখ পর্যন্ত বৈশাখী পোশাক প্রদর্শনীর আয়োজন করে। বিশেষত তরুণীদের আগ্রহ দেখা যায় এসব উৎসবে।

ফ্যাশন হাউজ বিবিয়ানায় তাসের নকশাকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হয়েছে সালোয়ার কামিজ, কুর্তি, শাড়ি ও পাঞ্জাবি। এইখানে পাঞ্জাবি পাওয়া যাবে ৮শ’ থেকে ১ হাজার টাকায়। কুর্তি সাড়ে ৯শ’ থেকে ১ হাজার ৫শ’ টাকা। সালোয়ার কামিজ ১ হাজার ৮শ’ থেকে ২ হাজার ৫শ’ টাকায় এবং শাড়ি ১ হাজার ৮শ’ ৫০ থেকে ১০ হাজার টাকা। এছাড়াও তাঁতের ও সুতি স্কার্ট পাওয়া যাবে সাড়ে ৮শ’ টাকায়।

Boishakh-Ayojon-2

নগরদোলায় ব্লকের কামিজ পাওয়া যাবে ১ হাজার ৮শ’ থেকে ২ হাজার টাকায়। টাইডাই ও সুতার কাজ করা শাড়ির দাম ২ হাজার ২শ’ টাকা। হাতের কাজের নকশি কাঁথার কাজ করা শাড়ির দাম ১৮ হাজার টাকা। নগরদোলায় ব্লক ও সুতার কাজ করা পাঞ্জাবি কিনতে গুনতে হবে ১ হাজার ৫শ’ থেকে ১ হাজার ৮শ’ টাকা।

ফ্যাশন ঘর কে ক্রাফটের বৈশাখী আয়োজনে বিশেষ প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে শাড়িতে। তাদের আয়োজনে থাকছে নিজস্ব তাঁতে বোনা বিভিন্ন মোটিফের শাড়ি। লাল-সাদার পাশাপাশি অন্যান্য রংও প্রাধান্য পেয়েছে বৈশাখী আয়োজনে। ধরন, কাজ এবং কাপড়ের ভিত্তিতে এই শাড়িগুলোর দাম হতে পারে ২ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা বা আরও বেশি।

কে ক্রাফটের ব্লক বাটিকের সালোয়ার কামিজের দাম পড়বে ১ হাজার ৮শ’ টাকা। পাঞ্জাবির দাম শুরু ১ হাজার ৮শ’ টাকা থেকে।

অঞ্জন’সয়ের আয়োজনেও থাকছে বিভিন্ন ধরনের শাড়ি, পাঞ্জাবি, টপস, ফতুয়া এবং সালোয়ার-কামিজ। ব্লকের উপর পাড় বসানো শাড়ির দাম পড়বে ৪ হাজার টাকা। পাঞ্জাবির দাম ১ হাজার ৫শ’ টাকা।

Boishakh-Ayojon-3

সালোয়ার কামিজের দাম শুরু ২ হাজার টাকা থেকে। এছাড়াও অ্যাপ্লিকের শাড়ি পাওয়া যাবে যার দাম ৩ হাজার ২শ’ টাকা।

দেশালের কামিজ ও ফতুয়ার নকশায় প্যাঁচা, মাছ, পাখি, ফুল ইত্যাদি মোটিফকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। এইসব ফতুয়ার দাম ৬শ’ টাকা থেকে শুরু। পাঞ্জাবির দাম সাড়ে ৮শ’ টাকা। এছাড়াও আছে একরঙা ও জলছাপের শাড়ি। দাম ১ হাজার টাকা থেকে ১ হাজার ৪শ’ টাকার মতো।

প্রতিটি পোশাক-ঘরই ছোট-বড় ও নারী-পুরুষ সবার কথা বিবেচনা করে নানা রকমের আয়োজন করেছে।

স্মার্টেক্স, ইয়েলো, ক্যাট’স আই, এক্সটাসি, লা রিভ, আর্টিস্টি, ওয়েস্টেক্স, ইনফিনিটি ইত্যাদি দোকানগুলোতেও রয়েছে বৈশাখী আয়োজন। এসব দোকানে পাবেন ছেলেদের শার্ট, পাঞ্জাবি। মেয়েদের জন্য রয়েছে সিঙ্গেল কামিজ, থ্রি পিস, পশ্চিমা ধাঁচের টপস, স্কার্ট, গাউন ইত্যাদি।

আজিজ সুপার মার্কেটের ফ্যাশন ঘরগুলোও বৈশাখী আয়োজনের বেশ সরব।

Boishakh-Ayojon-4

এখানকার দোকানগুলোতে দামের খুব একটা পার্থক্য চোখে পড়েনি। প্রায় প্রতিটি দোকানেই ফতুয়া পাওয়া যাচ্ছে সাড়ে ৭শ’ থেকে ১ হাজার টাকার মধ্যে। সালোয়ার কামিজের দাম ১ হাজার ৪শ’ ৫০ থেকে ২ হাজার ১শ’ টাকা। পাঞ্জাবি সাড়ে ৮শ’ থেকে ১ হাজার ৫শ’ টাকা। মান ও কাজ ভেদে শাড়ির দাম ১ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যে হতে পারে।

একটু সস্তায় পরিবারের সবার জন্য কেনাকাটা করতে চাইলে চলে যেতে পারেন গাউছিয়া বা নিউমার্কেটে। এখানে ব্লকের শাড়ি পাওয়া যাবে ৫শ’ থেকে ২ হাজার টাকার মধ্যে। অ্যাপ্লিকের শাড়ির দাম ১ হাজার থেকে ৩ হাজার ২শ’ টাকা। তাছাড়া জামদানি বা কাতানের শাড়ি কিনতে চাইলে গুনতে হবে আড়াই হাজার থেকে ৭ হাজার টাকা।

সালোয়ার কামিজ পাওয়া যাবে ৫শ’ থেকে ৩ হাজার টাকায়। ছোটদের পোশাকের দাম ৩শ’ থেকে ১ হাজার ৫শ’ টাকার মধ্যে। নিউমার্কেট এবং গাউছিয়া থেকে সুলভ মূল্যে কিনতে পারবেন ছেলেদের পাঞ্জাবি ও ফতুয়া।

তবে এখানে কেনাকাটা করার সময় জিনিসের মান বিবেচনা করে দরদাম করে কিনতে হবে। দোকানিরা একটু বেশিই দাম চেয়ে থাকেন, বিশেষত উৎসব উপলক্ষ্যে দাম কিছুটা বেশিই চেয়ে থাকেন তারা।

x

Check Also

ওয়েস্ট উইন্ডিজের বিপক্ষে টাইগারদের দারুণ জয়

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : দারুণ জয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজে ওয়ানডে সিরিজ শুরু করল বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে ...

Scroll Up