রবিবার সারাদেশে পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি ধর্মঘট

এমএনএ রিপোর্ট : ১২ দফা দাবিতে আগামীকাল রবিবার সকাল ছয়টা থেকে বেলা তিনটা পর্যন্ত দেশব্যাপী পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি ধর্মঘট পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। আজ শনিবার এক যৌথ সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক ও পেট্রোল পাম্প ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ নাজমুল হক।

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে দাবি মানতে ২৮ আগস্ট পর্যন্ত সময় বেধে দিয়েছিল সংগঠনটি।

Petrol-Pump-4আজ শনিবার যৌথ সভায় বলা হয়, ‘আমরা আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান চাই বলেই বিগত ৬ বছরে কোনো কর্মসূচি দিইনি। ৩ মাসের মধ্যে কমিশন বৃদ্ধিসহ অন্যান্য বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সরকারি সুস্পষ্ট প্রতিশ্রুতি থাকা সত্বেও ৬ বছরে তার কোনো বাস্তবায়ন নেই। তারপরও আমরা শুধু দেন দরবার, আবেদন নিবেদন করেছি। এরূপ পরিস্থিতিতে আমাদের পক্ষে জ্বালানি তেলের বিপনন ও পরিবহন চালিয়ে যাওয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে।’

সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- এসোসিয়েশনের মহাসচিব মিজানুর রহমান রতন, ট্যাংক লরি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মো. শাজাহান ও সদস্য সচিব আক্তার হোসেন।

ধর্মঘট চলাকালে সমগ্র দেশের সকল পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরির মাধ্যমে তেলের উত্তোলন, পরিবহন, বিক্রয় ও বিপনন বন্ধ থাকবে।

সভা থেকে তারা ১২ দফা দাবি পেশ করে-

১। সওজ অধিদফতরের ইজারা মাশুল অস্বাভাবিক বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে।
২। শ্রম মন্ত্রণালয়ের এসআরও নং-১৪১, তারিখ: ১০-০৬-২০০৮ বাতিল পূর্বক ট্যাংকলরিকে পৃথক প্রতিষ্ঠান হিসাবে নতুন এসআরও জারি করতে হবে।
Petrol-Pump-2৩। বাস্তবতার নিরিখে তেল বিক্রয়ের কমিশন ও ট্যাংক লরি ভাড়া বৃদ্ধি করতে হবে।
৪। ট্যাংক লরি শ্রমিকদের ৫ লক্ষ টাকা দুর্ঘটনা বীমা প্রথা প্রণয়ন করতে হবে।
৫। অপারেশন লস, ইভাপোরেশন লস এবং বিএসটিআই টলারেন্স মাত্রা যৌক্তিক হারে নির্ধারণের জন্য সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগ কর্তৃক পরীক্ষান্তে উহা পুনঃনির্ধারণ করতে হবে।
৬। ফেরী ঘাটে ট্যাংক লরিকে পারাপারে অগ্রাধিকার দিতে হবে।
৭। ভেজাল রোধে বেসরকারি রিফাইনারী কর্তৃক বাজারে তৈল বিক্রয় বন্ধ করতে হবে, নতুবা তাদের সরবরাহকৃত তেল বিক্রয়ের অনুমতি প্রদান করতে হবে।
৮। সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বিদ্যমান ট্যাংকলরি টার্মিনাল সংস্কার এবং প্রয়োজনীয় স্থানে নতুন টার্মিনাল নির্মাণ করতে হবে।
৯। পেট্রোল পাম্প স্থাপনের নীতিমালা পুনর্বিন্যাস করতে হবে।
১০। ট্যাংকলরি চলাচলে পুলিশি হয়রানি বন্ধ করতে হবে।
১১। পেট্রোল পাম্প পরিদর্শনকালীন বিপিসি এবং এসোসিয়েশনের প্রতিনিধির উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে।
১২। বিএসটিআই টলারেন্স মাত্রার হার যাচাইপূর্বক উহা পুনঃনির্ধারণ না করা পর্যন্ত কার্যক্রম স্থগিত রাখতে হবে।

ট্যাগ : পেট্রোল পাম্প, ট্যাংক লরি, ধর্মঘট, জ্বালানি, বিপনণ
x

Check Also

আগামীকাল বুধবার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)

এমএনএ রিপোর্ট : আগামীকাল বুধবার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)। নবী দিবস। এটি মানবজাতির শিরোমণি। মহানবী ...

Scroll Up