বাণিজ্য মেলায় ১৬০ কোটি টাকার রপ্তানি আদেশ

এমএনএ অর্থনীতি রিপোর্ট : এবারের ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় প্রায় ১৬০ কোটি ৫৭ লাখ টাকার (১৯.৪৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) রপ্তানি আদেশ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। গত বছরে এসেছিল ১৪৩ কোটি টাকার। এ হিসাবে আগের বছরের চেয়ে রপ্তানি আদেশ ৮ দশমিক ৭১ শতাংশ বেড়েছে।
এবার ২৩তম মেলার আসরে বিক্রিও কমেছে। ৩৫ দিনব্যাপী এই মেলায় বিক্রি হয়েছে ৮৭ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। গত বছরে বিক্রি হয়েছিল ১১৩ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। ২০১৬ সালে বিক্রি ছিল ১২১ কোটি টাকা।
রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী ও সদস্য লায়লা আঞ্জুমান বানু উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথিরর বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এবার মেলা জাঁকজমকপূর্ণ হয়েছে। তবে শুরুতে শীতের কারণে ক্রেতা ও দর্শনার্থী কম আসায় ব্যবসায়ীদের অনুরোধে সময় ৪ দিন বাড়ানো হয়।
বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, পূর্বাচলে ৩৫ একর জমির ওপর বাণিজ্য মেলার স্থায়ী জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। চীনা প্রতিষ্ঠানকে এই প্রজেক্টের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। ২০৩০ সালের মধ্যে প্রকল্পের সব কাজ শেষ হবে।
এবার মেলা থেকে ইপিবি অনেক মুনাফা করেছে জানিয়ে তোফায়েল আহমেদ বলেন, অতীতের তুলনায় এবারের মেলা অনেক সুন্দর হয়েছে। এবার মেলা এতো সফলভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে তার কারণ রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ছিল।
এবার নির্বাচনের বছরে যাতে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি না হয় সেজন্য সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব শুভাশীষ বসু বলেন, পণ্য পরিচিতি রপ্তানি বাড়াতে বড় ভূমিকা রাখছে মেলা। রপ্তানি বড়ানোর জন্য বিভিন্ন দেশে মেলায় বাংলাদেশ অংশ নিচ্ছে।
তিনি আরও বলেন, পণ্যের পাশাপাশি সেবা রপ্তানিতে নজর দিতে হবে। ভবিষ্যতে সেবা রপ্তানি উল্লেখযোগ্য স্তরে পৌঁছাবে।
এফবিসিসিআই সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘বাণিজ্য মেলা একটি উৎসবে পরিণত হয়েছে। দেশে তৈরি অনেক পণ্য দেখে ক্রেতারা অনুপ্রাণিত হচ্ছেন।’
এবার মেলায় দেশি-বিদেশি ৫৮৯টি স্টল ও প্যাভিলিয়ন অংশ নেয়। এর মধ্যে স্থাপত্যশৈলী, রফতানিকারক, পণ্যের ব্র্যান্ড ভ্যালু, উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, প্যাভিলিয়নে লোকবল ও আচরণ, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, বিক্রির পরিমাণসহ বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করে ৪৩ সেরা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত করেছে ইপিবি। সমাপনী অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।
প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়নে প্রথম পুরস্কার পেয়েছে আকিজ সিরামিক। দ্বিতীয় হয়েছে মিনিস্টার, ওয়ালটন ও আখতার ফার্নিচার। তৃতীয় হয়েছে আবুল খায়ের, অলিম্পিক ও নাদিয়া ফার্নিচার।
তরুণ উদ্যোক্তা হিসেবে বিশেষ সম্মাননা পেয়েছে ডেল্টা ইন্টেরিয়র।
সাধারণ প্যাভিলিয়নে প্রথম কারুপণ্য রংপুর, দ্বিতীয় মৌসুমী ইন্ডাস্ট্রিজ ও তৃতীয় যমুনা ইলেক্ট্রনিপ।
সাধারণ সংরক্ষিত প্যাভিলিয়নে প্রথম পর্যটন করপোরেশন, দ্বিতীয় পাট বহুমুখীকরণ উন্নয়ন কেন্দ্র এবং তৃতীয় এসএমই ফাউন্ডেশন ও পাট কল করপোরেশন।
বিদেশি প্যাভিলিয়নে পুরস্কার পেয়েছে রয়েল থাই অ্যাম্বাসি।
প্রিমিয়ার মিনি প্যাভিলিয়নে প্রথম হাতিল কমপ্লেক্স, দ্বিতীয় মেটাডোর বলপেন ও বিআরবি কেবলস এবং তৃতীয় এগ্রিকালচারাল মার্কেটিং কোম্পানি ও পারটেক্স ফ্যাশন।
সাধারণ মিনি প্যাভিলিয়নে প্রথম ক্রাউন সিমেন্ট, দ্বিতীয় গঙ্গা ফাউন্ড্রি ও তৃতীয় ওরিয়েন্টাল ইকো উড।
সংরক্ষিত মিনি প্যাভিলিয়নে প্রথম কারা অধিদপ্তর, দ্বিতীয় বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এবং তৃতীয় মিল্ক ভিটা ও সমবায় অধিদপ্তর।
প্রিমিয়ার স্টলে প্রথম হেলাল অ্যান্ড ব্রাদার্স, দ্বিতীয় রানা টেক্সটাইল ও অন্য রকম ইলেকট্রনিক্স এবং তৃতীয় পিএনএল হোল্ডিংস।
সাধারণ স্টলে প্রথম গ্রিনডট, দ্বিতীয় অল ওয়েল ও পির‌্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজ এবং তৃতীয় মনিপুরি তাঁত, নুরুল টেক্সটাইল ও আহমেদ ফুড প্রডাক্টস।
নারী উদ্যোক্তায় প্রথম জয়িতা ফাউন্ডেশন, দ্বিতীয় গৃহিণী ফুড, তৃতীয় নির্জনা বস্ত্র বিতান ও কুষ্টিয়া হস্তশিল্প।
এ ছাড়া মেলায় বিশেষ আয়োজনের জন্য পুরস্কার পেয়েছে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন।
x

Check Also

নির্বাচনের আগে গ্যাসের দাম বাড়ছে না

এমএনএ অর্থনীতি রিপোর্ট : তোড়জোড় চললেও নির্বাচনের আগে শিল্প খাতে গ্যাসের দাম বাড়ানোর পদক্ষেপ থেকে ...

Scroll Up