ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ফজলে রাব্বী চৌধুরীর ইন্তেকাল

এমএনএ রিপোর্ট : গাইবান্ধা-৩ (পলাশবাড়ি-সাদুল্যাপুর) আসনের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ড. টি আই এম ফজলে রাব্বী চৌধুরী ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি …রাজিউন)। তিনি জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর।

গতকাল বুধবার রাত ২টা ২০ মিনিটে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে সংক্রমণ ও উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

সাদুল্লাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম স্বপন ও উপজেলা জাতীয় পার্টির (এরশাদ) সাবেক সভাপতি আজিজুল ইসলাম খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ফজলে রাব্বী চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকায় ভোটের মাঠে আসতে পারছিলেন না। প্রচারণায় নামতে আজ বৃহস্পতিবার এলাকায় আসার কথা ছিলো তার। কিন্তু হঠাৎ করে ঢাকার নিজ বাসায় বুকে ব্যথা উঠলে দ্রুত তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ২টা ২০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

মৃত্যুকালে স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক কন্যাসহ অনেক গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

১৯৩৪ সালে ১ অক্টোবর গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার তালুকজামিরা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ফজলে রাব্বী চৌধুরী। ছয় ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়। তার বাবা মরহুম আহসান উদ্দিন চৌধুরী ছিলেন একজন স্কুলশিক্ষক।

১৯৫৭ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি (অনার্স) ডিগ্রি লাভ করেন ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন। ১৯৬০ সালে বৃত্তি নিয়ে ১৯৬৩ সালে টেকসাস অ্যান্ড এস থেকে এমএসসি এবং ১৯৬৫ সালে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহে অ্যাসিসটেন্ট প্রফেসর হিসেবে যোগদান দেন।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহ থেকে অধ্যাপনা ছেড়ে ১৯৮৪ সালে এইচ.এম এরশাদের জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন ফজলে রাব্বী। পরে তিনি গাইবান্ধা-৩ আসন থেকে জাতীয় পার্টি (এরশাদ) দলের মনোনয়ন পেয়ে গাইবান্ধা-৩ আসনে ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ফজলে রাব্বী সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনৈতিক উপদেষ্টা ছিলেন।

ড. টিআইএম রাব্বী চৌধুরী ১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ও বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের চিফ হুইপের দায়িত্ব পালন করেন। সরকারি প্রতিশ্রুতি কমিটি সভাপতি, কৃষি বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সংসদীয় কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন।

তিনি ভূমিমন্ত্রী, ত্রাণ ও পুনর্বাসনমন্ত্রী ও সংস্থাপনমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ময়মনসিংহের অধ্যাপক ছিলেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট এর মনোনীত গাইবান্ধা-৩ আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দিতা করতেছিলেন।

x

Check Also

টস জিতে ফিল্ডিংয়ে ‘আনপ্রেডিক্টেবল’ পাকিস্তান

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : চলতি বিশ্বকাপে নিজের চতুর্থ ম্যাচ খেলতে মাঠে নেমেছে অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান। ...

Scroll Up