ঠাকুরগাঁওয়ে বিজিবি-জনতা সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ৪

এমএনএ জেলা প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় গরু জব্দ করা নিয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে গ্রামবাসীর রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে বিজিবির গুলিতে চারজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন।

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে হরিপুর উপজেলার বহরমপুর সীমান্তবর্তী এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়।

নিহতরা হলেন-বকুয়া ইউনিয়নের রুহিয়া গ্রামে নজরুল ইসলামের ছেলে নবাব (৩০) ও জহিরুলের ছেলে সাদেক মিয়া (৪০) এবং বহরমপুর গ্রামের নূর ইসলামের ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী জয়নাল এবং বহরমপুর গ্রামের কালুর স্ত্রী জয়গুন (৫০)। বিজিবির দাবি, নিহতরা সবাই চোরাকারবারী।

হরিপুর থানার ওসি মো. আমিরুজ্জামান জানান, আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার বকুয়া ইউনিয়নের বহরমপুর গ্রামে এ ঘটনায় আরও অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, নিহতদের মধ্যে নবাব ও জয়নুল ছাত্র। নবাব অনার্সে পড়েন, আর জয়নুল দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। অপর দু’জন সাদেক স্থানীয় কৃষক এবং জয়গুন গৃহিণী ।

বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, বহরমপুর সীমান্ত এলাকা দিয়ে দিয়ে গরু চোরাকারবারীরা ভারত থেকে গরু আনে। ওই গরু উদ্ধারে বিজিবি সদস্যরা অভিযানে যায়। এসময় চোরাকারবারীরা বিজিবির ওপর অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। বিজিবি সদস্যরাও আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়।

ঠাকুরগাঁও জেলার পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান গণমাধ্যমকে জানান, বিজিবির সদস্যরা চোরাই গরু উদ্ধার করতে গেলে চোরকারবারীরা বাধা দেয়। এসময় আশপাশের লোকজনও তাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে বিজিবি সদস্যদের ঘেরাও করে রাখে। পরে বিজিবি সদস্যরা আত্মরক্ষার্থে গুলি চালায়। এতে এক পথচারীসহ চারজন নিহত হন।

তবে গ্রামবাসীর দাবি, বিজিবির সদস্যরা কৃষকের বাড়ি থেকে গরু নিয়ে যাচ্ছিলেন। এসময় স্থানীয়রা এতে বাধা দেয়। পরে বিজিবি গুলি ছুড়লে গ্রামবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে দুই ছাত্রসহ চারজন নিহত হন।

আহত ২৫ জনকে হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতদের মধ্যে মিঠুন (১৮), ইশাদ (৩৫), সাদেকুল (৩০), তৈমুর, রাসেল (১৬), আনসারুল (২৮), সাদেকুল (৩২), মুন তারা (৪৫), বাবু (১২), নওশাদ (২৫), আব্দুল হান্নান (৬০), যৌবন নেসা (৩৫) ও নুরনাহারের (৬০) নাম জানা গেছে।

হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আব্দুস সামাদ বলেন, গুলিবিদ্ধ প্রায় ১৫ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এম জে আরিফ বেগ ও উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

হরিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জানান, বিজিবির গুলিতে দু’জন নিহত হয়েছেন।

ঠাকুরগাঁওয়ের পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান ও হরিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিরুজ্জামান তিনজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন। আর জয়গুনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য হুমায়ুন কবির।

এ ব্যাপারে ৫০ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তুহিন বিন মাসুদ জানান, বেতনা বিওপির সদস্যরা ভারতীয় গরু আটক করতে গেলে চোরাকারবারীরা সংঘবদ্ধ হয়ে বিজিবির ওপর হামলা চালালে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। জেলা প্রশাসক কামরুজ্জামান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থল গেলে গ্রামবাসী তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে।

তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনা সম্পর্কে জানতে বিজিবির কোনো সদস্যের বক্তব্য জানা যায়নি।

x

Check Also

নুসরাত হত্যার আসামি শামীম ৫ দিনের রিমান্ডে

এমএনএ জেলা প্রতিনিধি : ফেনীতে নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় তার সহপাঠী মোহাম্মদ শামীমকে ...

Scroll Up