আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ হয়ে গেল গুগল প্লাস

এমএনএ সাইটেক ডেস্ক : গুগল প্লাস সেবাটি এখন থেকে অতীত। কারণ আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ হয়ে গেল সেবাটি। গত বছরের অক্টোবরে বন্ধের ঘোষণা দেয়ার পর গত মঙ্গলবার থেকে সামাজিক মাধ্যম সেবাটি আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে ইন্টারনেট জায়ান্ট গুগল।

ইন্টারনেট থেকে চিরবিদায় নিয়েছে গুগলের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম গুগল প্লাস। ২০১১ সালে চালু হওয়া এই মাধ্যম গত মঙ্গলবার স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গুগলের দুই সহপ্রতিষ্ঠাতা সের্গেই ব্রিন ও ল্যারি পেজ এবং বর্তমান প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুন্দর পিচাইয়ের গুগল প্লাস অ্যাকাউন্ট মুছে ফেলার মাধ্যমে মাধ্যমটির আনুষ্ঠানিক পরিসমাপ্তি ঘটল। এর পরপরই গুগল প্লাস ব্যবহারকারীদেরও মাধ্যমটির ব্যবহার বন্ধ হয়ে যায়। সরিয়ে নেওয়া হয়েছে গুগল প্লাসের সব সেবাও। শুধু গুগলের ব্যবসায়িক প্রিমিয়াম সেবা জি সুইটের জন্য এখনো চালু রয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি। গত বছরের ডিসেম্বরে গুগল প্লাস বন্ধের ঘোষণা দেয় গুগল।

ফেসবুক ও টুইটারের মতো জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের মতোই ছিল গুগল প্লাস। তবে এর নকশা ও ব্যবহারবিধি ছিল খুবই সাদাসিধে। গুগলের জিমেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই গুগল প্লাসের ব্যবহারকারী হতে হতো। তবে গুগলের অন্যান্য সেবা যতটা অপ্রতিদ্বন্দ্বী, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম হিসেবে ততটাই দুর্বল ছিল গুগল প্লাস।

প্রতিষ্ঠানটি ফেব্রুয়ারি থেকে নতুন অ্যাকাউন্ট খোলা বন্ধ করে দেয়ার পর এখন থেকে সব ধরনের সেবা বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। এখন অভ্যন্তরীণভাবে গুগল প্লাসের সব ডাটা মুছে ফেলা শুরু করেছে গুগল। জানুয়ারিতে গুগল এক বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বলেছিল, এপ্রিলের ২ তারিখ ব্যবহারকারীর তৈরি করা গুগল প্লাস অ্যাকাউন্ট এবং গুগল প্লাস পেজ বন্ধ করে দেয়া হবে।

সেদিন থেকেই ব্যবহারকারীর ডাটা মুছে ফেলাও শুরু করা হবে। তবে গুগল বলছে, ডাটাগুলো মুছে ফেলতে তাদের বেশ কয়েক মাস সময় লেগে যাবে। এ সময়ের মধ্যে ব্যবহারকারীরা চাইলে লগইন করতে পারবে। তবে কোনো অ্যাক্টিভিটি পরিচালনা করতে পারবে না।

গুগল প্লাস বন্ধের সিদ্ধান্তটি এসেছিল মাধ্যমটির অন্তত পাঁচ কোটি গ্রাহকের তথ্য ফাঁস হওয়ার ঘটনা প্রকাশ্যে এলে। এমনিতেই এটি খুব জনপ্রিয়তা পায়নি। তার ওপর এমন কেলেঙ্কারির পর সেবাটিকে আর এগিয়ে নিতে চায়নি গুগল। খবরটি প্রকাশ হওয়ার পরপরই গুগলের শেয়ারের দাম তাৎক্ষণিকভাবে ২ শতাংশ কমে যায়।

এ বিষয়ে গুগল বলেছে, তাদের ডাটা প্রটেকশন অফিসার ত্রুটিটি যাচাই-বাছাই করে দেখেছে কোনো তথ্যের অপব্যবহার ঘটেছে কিনা।

প্রায় ২০০ কোটি গুগল প্লাস গ্রাহকের মাত্র ৪০ কোটি মাসিক সক্রিয় ব্যবহারকারী ছিল। তাঁরা গড়ে যোগাযোগমাধ্যমটিতে অবস্থান করতেন মাত্র ৪ মিনিট। যেখানে গুগলের ভিডিও সেবা ইউটিউবের মাসিক সক্রিয় ব্যবহারকারী প্রায় ১৫০ কোটি, প্রত্যেকে গড়ে ৪০ মিনিট করে ভিডিও দেখেন। গুগল প্লাস টিকিয়ে রাখার গুগলের সব চেষ্টা বৃথা গেছে। নিরুপায় হয়েই সেবাটি বন্ধ করে দিল গুগল।

x

Check Also

ভোজন রসিকদের পছন্দ ইলিশ খিচুড়ি

এমএনএ ফিচার ডেস্ক : ইলিশ খিচুড়ি কার না পছন্দ। বিশেষ করে ভোজন রসিকদের কাছে পছন্দের ...

Scroll Up