রাজধানী ছেড়ে শিকড়ে ফিরছে দেড় কোটি মানুষ

এমএনএ রিপোর্ট : ঈদ মানে ঘরে ফেরার আনন্দ। প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে রাজধানী ছেড়ে শিকড়ে ফিরছে প্রায় দেড় কোটি মানুষ। দৈনন্দিন ব্যস্ততা ভুলে ইট-পাথর-কংক্রিটের এই জঞ্জাল ছেড়ে কিছুটা প্রশান্তির আশায় বাড়ি ফেরা। নিজস্ব নীড়ে আপন মানুষের সান্নিধ্যে বেশ মজার সময় কাটানো হলোই ঈদ-আনন্দ।

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ঈদযাত্রায় ঢাকা, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জের চার সিটি কর্পোরেশন এলাকাসহ তিন জেলা ছেড়ে যাচ্ছেন এক কোটি ৪৭ লাখ মানুষ। এর মধ্যে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন ও জেলার অন্যান্য স্থান থেকে যাবেন এক কোটি ১০ লাখ মানুষ। গাজীপুর থেকে বাড়ি ফিরবেন ২৫ লাখ ৫০ হাজার মানুষ। ১১ লাখ ৫০ হাজার মানুষ যাবেন নারায়ণগঞ্জ থেকে। বিপুল এ সংখ্যক ঘরমুখী মানুষের ৫৫ শতাংশ সড়কপথে এবং ২৫ শতাংশ নৌপথে যাত্রা করবেন। বাকি ২০ শতাংশ যাবেন রেলপথে। নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির ঈদ-পূর্ব বার্ষিক প্রতিবেদনে এমন পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতি ঈদে আনুমানিক ৫০ শতাংশ মানুষ ঢাকা মহানগরী ছেড়ে যান। গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ শহর ছাড়েন ৩০ শতাংশ মানুষ। এ হিসাবে এবারের ঈদে এক কোটির অধিক মানুষ ঢাকা শহর ছাড়ছেন। গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ শহর ছাড়ছেন ১৯ লাখ ৫০ হাজার ও সাত লাখ ৫০ হাজার মানুষ।

এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ, ঢাকা উত্তর, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ- চার সিটি কর্পোরেশনের বাইরে এ তিন জেলার অন্যান্য স্থান থেকে আরও ২০ লাখ মানুষ ঈদে ঘরমুখী হচ্ছেন। এর মধ্যে ঢাকার ১০ লাখ, গাজীপুরের ছয় লাখ এবং নারায়ণগঞ্জের চার লাখ মানুষ। সব মিলিয়ে তিন জেলার এক কোটি ৪৭ লাখ (প্রায় দেড় কোটি) মানুষ এবার ঈদযাত্রায় শামিল হচ্ছেন।

বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগৃহীত তথ্য এবং সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঈদ-পূর্ব পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে এ পরিসংখ্যান তৈরি করা হয়েছে বলে জাতীয় কমিটির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে, নৌ ও সড়ক পরিবহন সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, গণপরিবহন নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এবং ব্যক্তিপর্যায়ের গবেষকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের বরাত দিয়ে বেসরকারি এ সংগঠনের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, আসন্ন ঈদুল ফিতরে ঢাকা, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জ থেকে ৮০ লাখ ৮৫ হাজার মানুষ সড়কপথে এবং ৩৬ লাখ ৭৫ হাজার মানুষ নৌপথে ঘরমুখী হবেন। বাকি ২৯ লাখ ৪০ হাজার মানুষ যাবেন রেলপথে। এ হিসাবে ঈদে ঘরমুখী মানুষের ৫৫ শতাংশ সড়ক, ২৫ শতাংশ নৌ ও ২০ শতাংশ রেলপথ ব্যবহার করবেন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের বরাত দিয়ে জাতীয় কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) জনসংখ্যা যথাক্রমে এক কোটি ছয় লাখ ২৭ হাজার ১৭ এবং ৭৫ লাখ ৫৮ হাজার ২৫ জন। দুই কর্পোরেশন মিলিয়ে ঢাকা মহানগরীর মোট জনসংখ্যা এক কোটি ৮১ লাখ ৮৪ হাজার ৪১ জন এবং সম্মিলিত আয়তন ২৭০ বর্গকিলোমিটার। তবে জীবন-জীবিকার তাগিদে দেশের নানা প্রান্ত থেকে ঢাকামুখী প্রবণতা বাড়ার কারণে গত নয় বছরে রাজধানীর জনসংখ্যা অন্তত দু’কোটি দাঁড়িয়েছে। একই কারণে ঢাকার পার্শ্ববর্তী গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন (জিসিসি) ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের (এনসিসি) জনসংখ্যা বেড়ে যথাক্রমে ৬৫ লাখ ও ২৫ লাখ হয়েছে। সব মিলিয়ে তিন শহরের বর্তমান লোকসংখ্যা দুই কোটি ৯০ লাখ বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

x

Check Also

টস জিতে ফিল্ডিংয়ে ‘আনপ্রেডিক্টেবল’ পাকিস্তান

এমএনএ স্পোর্টস ডেস্ক : চলতি বিশ্বকাপে নিজের চতুর্থ ম্যাচ খেলতে মাঠে নেমেছে অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান। ...

Scroll Up