লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন এইচএম এরশাদ

এমএনএ রিপোর্ট : বোন ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (০৪ জুলাই) বিকেল ৪টা ১০ মিনিটে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) সিসিইউতে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। এর আগে থেকে তিনি অক্সিজেন সাপোর্টে ছিলেন।

এরশাদের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি খন্দকার দেলোয়ার জালালী বিষয়টি গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সকালে জাপা চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে জিএম কাদের জানিয়েছিলেন, বিগত চার দিন ধরেই এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত। এখনও তার অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ফুসফুসের সংক্রমণ চিকিৎসকদের প্রত্যাশা অনুযায়ী কমছে না। এছাড়া তার কিডনিও প্রয়োজন মতো কাজ করছে না। ফলে তার শরীরে কিছুটা পানি জমেছে।

‘তবে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের (সিএমএইচ) চিকিৎসকরা সাবেক রাষ্ট্রপতিকে বিশ্বমানের চিকিৎসাসেবাই দিয়ে যাচ্ছেন। পল্লীবন্ধুকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন তারা।’

জিএম কাদের বলেন, সিএমএইচের চিকিৎসকরা দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই পল্লীবন্ধুর চিকিৎসা চালাচ্ছেন। সিএমএইচের চিকিৎসকরা মনে করলেই তাকে বিদেশ নেওয়া হবে। প্রয়োজনে বিদেশ থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকও ডাকা হবে।

আগামীকাল শুক্রবার (৫ জুলাই) সারাদেশের মসজিদসহ বিভিন্ন প্রার্থনালয়ে তার রোগমুক্তির জন্য দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান জিএম কাদের।

এর আগে গতকাল বুধবার (৩ জুলাই) এক সংবাদ সম্মেলনে এরশাদ বোন ক্যান্সারে আক্রান্ত বলে জানান জাপার মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা।

গত ২৭ জুন সকালে অসুস্থবোধ করলে জাপা চেয়ারম্যানকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে একাধিকবার তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি ও অবনতি ঘটে।

এরশাদ দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেও তিনি সিঙ্গাপুর থেকে উন্নত চিকিৎসা নিয়ে ফেরেন। তারপর থেকে নিয়মিতই সিএমএইচে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আসছিলেন তিনি।

জাপা চেয়ারম্যান এরশাদ দীর্ঘদিন ধরে রক্তের রোগ মাইলোডিসপ্লাস্টিক সিনড্রোমে ভুগছেন। তার অস্থিমজ্জা পর্যাপ্ত হিমোগ্লোবিন উৎপাদন করতে পারছে না। গত ২২ জুন সকালে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর এরশাদের ফুসফুস ও কিডনিতে সংক্রমণের বিষয়টি ধরা পড়ে।

রওশন এরশাদ আরও বলেন, ওনার রক্তের একটা সমস্যা ছিল, সেটা এবং বয়স দুটো মিলে অনেক বেশি কমপ্লিকেশন হয়ে যাচ্ছে। এখন আস্তে আস্তে সব অর্গানগুলো উইক হয়ে যাচ্ছে। ডাক্তাররা সর্বোতভাবে চেষ্টা করেছেন।

জাপা চেয়ারম্যানের জন্য নেতাকর্মী ও দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়ে তিনি বলেন, সব কিছু তো আল্লাহর হাতে, আল্লাহ ইচ্ছা করলে আবার পুনর্জীবিত করতে পারেন মানুষকে। এখন সবকিছু আল্লাহর হাতে।

পরে জি এম কাদের বলেন, ওনার (এরশাদ) অবস্থা অবনতির দিকে যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে অনেক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। বার্ধক্যজনিত কারণে এটা হচ্ছে। ওনার সিস্টেমে আগেই সমস্যা ছিল। দোয়া করা ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।

এর আগে সকালে জাপা চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জি এম কাদের সাংবাদিকদের বলেছিলেন, এরশাদের শারীরিক অবস্থার লক্ষণ শুভ নয়। ফুসফুস ও কিডনির সংক্রমনের উন্নতি যতটা হওয়ার কথা ছিল, ততটা হয়নি। সিঙ্গাপুরে নেওয়ার মতো শারীরিক অবস্থাও নেই। আর সিঙ্গাপুর নেওয়া হলেও তার উপকার হবে কি না তাতে সন্দেহ রয়েছে।

x

Check Also

দেশে ফিটনেসবিহীন গাড়ি ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৩২০

এমএনএ রিপোর্ট : রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ফিটনেসবিহীন গাড়ির সংখ্যা ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৩২০টি। আজ ...

Scroll Up