Don't Miss
Home / খেলাধূলা / জেল থেকে আগস্টেই মুক্তি পেতে পারেন রোনালদিনহো
রোনালদিনহো

জেল থেকে আগস্টেই মুক্তি পেতে পারেন রোনালদিনহো

এমএনএ খেলাধূলা রিপোর্টঃ জাল পাসপোর্ট নিয়ে প্যারাগুয়েতে ঢোকার অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া রোনালদিনহো ২৪ আগস্ট মুক্তি পেতে চলেছেন৷ ব্রাজিলীয় ফুটবল কিংবদন্তিকে রাজধানী আসুনসিওন থেকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ প্রাক্তন বার্সেলোনা ও পিএসজি তারকার সঙ্গে তাঁর ভাইকেও গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷

বিচারপতি সূত্র উদ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, ব্রাজিলের বিশ্বকাপজয়ী ফুটবলার রোনালদিনহো চলতি মাসেই ছাড়া পেতে চলেছেন৷ জাল পাসপোর্ট নিয়ে ঢোকার অভিযোগে প্যারাগুয়েতে পাঁচ মাস ধরে আটক রয়েছেন তিনি৷ ২৪ আগস্ট মুক্তি পেতে পারেন সাবেক বার্সেলোনা, এসি মিলান এবং পিএসজি তারকা৷

ভাই রবের্তো-সহ ব্রাজিলীয় এই ফুটবল তারকাকে জাল পাসপোর্ট নিয়ে প্যারাগুয়ে প্রবেশের অভিযোগে ৬ মার্চ গ্রেপ্তার করা হয়৷ প্রায় এক মাস জেলে কাটান ২০০২ বিশ্বকাপজয়ী এই ব্রাজিলীয় ফুটবলার। তবে মাস খানেক কারাগারে থাকার পর ১৬ লক্ষ মার্কিন ডলারের বিনিময়ে জামিন পেলেও দেশ ছাড়ার অনুমতি পাননি৷ গৃহবন্দি করে রাখা হয় ব্রাজিলের এই কিংবদন্তি ফুটবলারকে৷

বিচারক গুস্তাভো আমরিলা মামলার শুনানি দিন ধার্য করেছেন ২৪ আগস্ট। প্রসিকিউটর বিচারকের কাছে একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছেন যাতে লেখা রয়েছে দেশে ফেরার জন্য ৪০ বছর বয়সী রোনালদিনহোকে ‘সামাজিক ক্ষতিপূরণ’ হিসেবে ৯০ হাজার ডলার জরিমানা দিতে হবে৷ তবে তিনি ব্রাজিলে অর্থাৎ নিজের দেশে ফিরে যেতে পারবেন৷ শুধু তাই নয়, দেশে ফিরলেও মামলা চলাকালীন তিন মাস পর তাঁকে বিচারকের সামনে হাজির দিতে হবে।

রোনালদিনহো পুলিশি জেরায় জানিয়েছেন, জাল পাসপোর্টের বিষয়টি তিনি জানতেন না৷ কিন্তু তাঁর ভাই ভুয়া পাসপোর্ট সম্পর্কে জানতেন৷ তাই ভাইয়ের জরিমানা বেশি হবে৷ ভাইকে এক লক্ষ ১০ হাজার মার্কিন ডলার জরিমানা দিতে হবে এবং প্রতি তিন মাস অন্তর দুই বছরের জন্য বিচারকের সামনে হাজিরা দিতে হবে। প্রসিকিউটর অবশ্য ভাই রবার্তোর জন্য দুই বছরের কারাদণ্ডেরও অনুরোধ করেছিলেন৷ তিনি হলেন রোনালদিনহোর বিজনেস ম্যানেজারও৷

তবে এই প্রথম নয়, এর আগেও পুলিশের হাতে অপরাধমূলক কাজের জন্য ধরা পড়েছেন রোনালদিনহো৷ ২০১৮ সালে ব্রাজিল সরকারের অনুমতি ছাড়াই প্রাক্তন ফিশিং ট্র্যাপ তৈরি করেছিলেন এই তারকা ফুটবলার৷ এর জন্য তাঁর বিশাল অঙ্কের জরিমানা করা হয়েছিল। সেই টাকা শোধ করতে না-পারায় বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল তাঁর পাসপোর্ট। দেশের বাইরে যাওয়ার অনুমতিও ছিল না কিংবদন্তি এই ফুটবলারের৷

তবে ফুটবল ক্যারিয়ারে সারা বিশ্বের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন ব্রাজিলীয় এই খেলোয়াড়৷ ২০১৫ সালে শেষবার পেশাদার ফুটবল খেলেন রোনালদিনহো৷ দেশকে ২০০২ সালে বিশ্বকাপ জেতানো ছাড়াও ২০০৬ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী বার্সালোনা দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন রোনালদিনহো৷ ২০০৪ ও ২০০৫ টানা দুবার ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কারও জেতেন রোনালদিনহো৷

x

Check Also

ক্রেইগ ম্যাকমিলান

দায়িত্ব নেয়ার আগেই বাংলাদেশ দলের চাকরি ছেড়ে দিলেন ক্রেইগ ম্যাকমিলান

এমএনএ খেলাধুলা ডেস্কঃ নিউজিল্যান্ডের সাবেক ব্যাটসম্যান ক্রেইগ ম্যাকমিলান দায়িত্ব নেয়ার আগেই আকস্মিকভাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ...

Scroll Up
%d bloggers like this: